নাইক্ষ্যংছড়ি তুমরু সীমান্তে উত্তেজনা: বিজিবি-বিজিপির পতাকা বৈঠক নাইক্ষ্যংছড়ি তুমরু সীমান্তে উত্তেজনা: বিজিবি-বিজিপির পতাকা বৈঠক – CTG Journal

বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ০২:০৫ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
ইরফান ও জাহিদের বিরুদ্ধে আরও ৪ মামলা রামু-গর্জনিয়ায় পুলিশের সাথে ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় লাখ টাকায় প্রতিদিন লাভ ১৩০০! গ্রেফতার ৩ প্রকল্পের বিরুদ্ধে মামলা হলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা: প্রধানমন্ত্রী বান্দরবান হবে দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠ জেলা- পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর কাপ্তাইয়ে বজ্রপাত প্রতিরোধে ৫ হাজার তালবীজ রোপণ কর্মসূচীর উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক কোভিড-১৯: দেশে একদিনে আরও ২০ জনের মৃত্যু সীমান্ত রক্ষার পাশাপাশি দুস্থদের জন্য কাজ করছে বিজিবি লোগাং জোন বিজিবি লোগাং জোন সীমান্ত রক্ষার পাশাপাশি দুস্থদের জন্য কাজ করছে নুরসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন ১২ নভেম্বর চট্টগ্রাম কলকাতা রুটে স্পাইস জেটের ফ্লাইট শুরু ৫ নভেম্বর নৌবাহিনীর কর্মকর্তা হত্যাচেষ্টা মামলায় আরও একজন গ্রেফতার
নাইক্ষ্যংছড়ি তুমরু সীমান্তে উত্তেজনা: বিজিবি-বিজিপির পতাকা বৈঠক

নাইক্ষ্যংছড়ি তুমরু সীমান্তে উত্তেজনা: বিজিবি-বিজিপির পতাকা বৈঠক

নুরুল কবির, বান্দরবান || বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি ও মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির মধ্যে পতাকা বৈঠক শুরু হয়েছে। নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তে জিরো পয়েন্টে এই পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

বৈঠকে সাত সদস্যের বিজিবি প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ককসবাজার ৩৪ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মঞ্জুরুল আহসান খান। দুই দেশের সীমান্তে উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতিতে বিজিবি ও বিজিপির মধ্যে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এদিকে, তুমরু সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়ার পাশে আবারও জনবল বৃদ্ধি করেছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপি।

গতকাল (বৃহস্পতিবার) থেকেই বান্দরবানের নাইক্ষংছড়ির তুমরু সীমান্তে জিরো পয়েন্টে ঢুকতে আবারও প্রস্তুতি নিয়েছে মিয়ানমারের সেনারা। তুমরু সীমান্তে ৭টি পয়েন্টে কাঁটাতারের বেড়া পার হতে মই বসিয়েছে তারা। মই দিয়ে গতকাল রাতে জিরো পয়েন্টে ঢুকে হামলা চালানোর চেষ্টা করেছিল বার্মিজ সেনারা।

সেই সঙ্গে নো-ম্যান্স ল্যান্ড থেকে রোহিঙ্গাদের সরে যেতে এখনও মাইকিং অব্যাহত রেখেছে তারা। কাঁটাতারে আবারও মই বসানোয় আতঙ্ক বিরাজ করছে নো-ম্যান্স ল্যান্ডে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের মাঝে। তুমরু সীমান্তে রোহিঙ্গারা জানান, আমরা সারারাত নির্ঘুম কাটিয়েছি। রাতে মিয়ানমার সেনাবাহিনী কাঁটাতারে মই দিয়ে জিরো পয়েন্টে ঢোকার চেষ্টা করে। শুক্রবার দুপুর থেকে আবারো সেই মই বসিয়েছে মিয়ানমার। সারারাত আতঙ্কে ছিলাম, এখনও ভয়ে আছি। মিয়ানমার সেনারা যেকোনো সময় আবারো জিরো পয়েন্টে ঢোকার চেষ্টা করতে পারে।

এদিকে, বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তুমরু সীমান্তের ওপারে মিয়ানমার অংশ থেকে আজ শুক্রবারও ফাঁকা গুলির শব্দ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার দিনগত রাত ৩টার দিকে বেশ কয়েকটি ফাঁকা গুলির শব্দ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় সীমান্তে উত্তেজনা আরো বেড়েছে। সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির সদস্যরা।

ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ বাহাদুর বলেন, ‘মিয়ানমার সেনা বাহিনী গুলিবর্ষণ করলে কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গা বাংলাদেশের অভ্যন্তরে চলে আসেন। এদের বেশিরভাগই নারী ও শিশু।’

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT