নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা হলে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে: কাদের নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা হলে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে: কাদের – CTG Journal

মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:০৫ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
কর্মকর্তা নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগে চট্টগ্রাম বন্দরে দুদকের অভিযান বঙ্গবন্ধু বিপিএল: মাঠের লড়াইয়ে যারা এপিক প্রপার্টিজের এমডিসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন বাণিজ্য ঘাটতি ৫৬২ কোটি ডলার ছাড়ালো বিদেশি শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণের নির্দেশ ‘সু চি গণহত্যার প্রতীক, আমরা তাকে ঘৃণা করি’ শহীদ বুদ্ধিজীবী দায়িত্বরত আসল মানুষ, হত্যা চক্রান্তের যে মানুষ কেজিডিসিএল ঝুঁকিপূর্ণ গ্যাস রাইজারের অভিযান শুরু করেনি নতুন রং-এ ৫০ টাকার নোট খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নি‌য়ে অসত্য সংবাদ পরিবেশন কর‌ছে বিএসএমএমইউ: ড্যাব জি কে শামীমের ‘সহযোগী’ গণপূর্তের ১১ প্রকৌশলীকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে দুদক ইবিতে ভর্তি শেষে এখনো ৮৭২ আসন ফাঁকা!
নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা হলে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে: কাদের

নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা হলে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে: কাদের

বিএনপি অন্দোলনের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করলে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এর জন্য যখন যা প্রয়োজন সেটাই করা হবে বলেও তিনি জানান।

তিনি বলেন, ‘নৈরাজ্য সৃষ্টি করে বিএনপি ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছে। তারা বিচার মানে না, আদালত মানে না। আন্দোলনের নামে যদি নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করে তাহলে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে। আমরা প্রস্তুত আছি, এর জন্য যখন যা প্রয়োজন সেটা করা হবে।

রোববার (১ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের ২১তম জাতীয় সম্মেলন উপলক্ষে গঠিত মঞ্চ ও সাজসজ্জা কমিটির সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপির উদ্দেশ্যে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি যদি রাজনৈতিকভাবে আন্দোলন করে, তাহলে আমরা তা রাজনৈতিকভাবেই মোকাবিলা করবো। কিন্তু তারা যদি আন্দোলনের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করে তাহলে সমচিৎ জবাব দেওয়া হবে।

বিএনপি মাহসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ক্ষমতায় থাকাকালীন বিএনপি হাওয়া ভবন সৃষ্টি করে টাকা বানানোর পাওয়ার সেন্টার সৃষ্টি করেছিল। আওয়ামী লীগ সরকার কিন্তু টাকা বানানোর কোনো পাওয়ার সেন্টার সৃষ্টি করেনি। আমাদের কোনো পাওয়ার সেন্টার নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ ঘর থেকে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। এ অভিযানের প্রতি আমাদের সমর্থন আছে, আমরা শেখ হাসিনার সঙ্গে আছি।

জাতীয় সম্মেলন সাদামাটাভাবে করা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, আগামী বছর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী। ৮ ডিসেম্বর থেকে কাউনডাউন শুরু হবে। তাই এবারে সম্মেলন সাদামাটাভাবে করা হবে। আমরা দলকে সংগঠিত ও শক্তিশালী করে মুজিব বর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করবে। সেভাবে সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে।

সভায় মঞ্চ ও সাজসজ্জা উপ-কমিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলন সফল করার লক্ষে রোববার (২ ডিসেম্বর) থেকে মঞ্চ ও সাজসজ্জা কমিটি কাজ শুরু করবে এবং ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করা হবে। সম্মেলন স্থল পরিদর্শনের জন্য পরে ৪ দিন (১৬ থেকে ১৯) সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

মঞ্চ ও সাজসজ্জা কমিটির আহ্বায়ক ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানকের সভাপতিত্বে সভায় আওয়ামী লীগ নেতা মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএমসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন, মঞ্চ ও সাজসজ্জা কমিটির সদস্য সচিব মির্জা আজম, আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT