সফর শেষে ইপি প্রতিনিধিদল মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক পুনর্বিবেচনা করতে হবে সফর শেষে ইপি প্রতিনিধিদল মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক পুনর্বিবেচনা করতে হবে – CTG Journal

বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ১২:২২ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
মানিকগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন ৪ খুনের রহস্য উন্মোচন: খোটা দেওয়ায় পরিবারসহ ভাইকে খুন প্রধানমন্ত্রী যা আহ্বান করেন জনগণ তাতেই সাড়া দেয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরগুনায় সৌদি প্রবাসীসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা: পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ সাংবাদিক নেতা রুহুল আমীন গাজী গ্রেফতার মানিকছড়িতে প্রাথমিক শিক্ষক ও শিক্ষা কর্মকর্তার বিদায় অনষ্ঠান চট্টগ্রাম থেকে রপ্তানি হচ্ছে গরুর নাড়িভুড়ি পরীক্ষা পদ্ধতিতে পরিবর্তন আসছে ধর্মঘটে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে পণ্য খালাসে অচলাবস্থা ফরম পূরণের কিছু টাকা ফেরত পাবে এইচএসসি শিক্ষার্থীরা মহাবিশ্বের নক্ষত্রের চেয়েও বেশি ভাইরাস পৃথিবীতে, কিন্তু সব ভাইরাস দ্বারা মানুষ আক্রান্ত হয় না কেন? কারিগরি শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় বসতেই হবে
সফর শেষে ইপি প্রতিনিধিদল মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক পুনর্বিবেচনা করতে হবে

সফর শেষে ইপি প্রতিনিধিদল মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক পুনর্বিবেচনা করতে হবে

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘনের পরিপ্রেক্ষিতে লাখ লাখ রোহিঙ্গার বাস্তুচ্যুতি ও দেশত্যাগের পর ইউরোপীয় ইউনিয়নকে (ইইউ) মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক পুনর্বিবেচনার জোরালো আহ্বান জানিয়েছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের (ইপি) প্রতিনিধিরা। গত ১২ থেকে ১৬ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমার সফর শেষে ইপি প্রতিনিধিদল এক বিবৃতিতে ওই আহ্বান জানায়। তারা দেশটির রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের আন্তর্জাতিক তদন্তের তাগিদ দিয়েছে।

প্রতিনিধিদলের পক্ষে এর নেতা পিয়ের অ্যান্তোনিও পানজেরি শনিবার এক বিবৃতিতে বলেন, ‘ইইউকে মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক অবশ্যই পুনর্বিবেচনা করতে হবে।’ তিনি বলেন, মিয়ানমারের প্রতিটি খাত ধরে পরিস্থিতি অনুযায়ী প্রণোদনা দেওয়া ও বিপরীতধর্মী উদ্যোগ নেওয়ার নীতি ইইউকে গ্রহণ করতে হবে। অ্যান্তোনিও পানজেরি বলেন, মিয়ানমারে মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের উদ্বেগ ছিল। দেশটিতে পাঁচ দিনের সফর শেষে তাদের উদ্বেগ বহাল আছে।

পানজেরি বলেন, মিয়ানমারের বিভিন্ন অঞ্চলে মানবাধিকার পরিস্থিতির সুস্পষ্ট অবনতি ঘটছে। সাংস্কৃতিক, নৃতাত্ত্বিক ও ধর্মীয় গোষ্ঠী, মানবাধিকারকর্মী ও সাংবাদিকদের কাজে এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর সদস্যদের তাদের জমি থেকে তাড়ানো হচ্ছে, নিপীড়ন, এমনকি মেরে ফেলা হচ্ছে।

পানজেরি বলেন, ইপি প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে নাগরিক সমাজ, সংগঠন ও ধর্মীয় নেতারা নিশ্চিত করেছেন যে মিয়ানমারে গণতান্ত্রিক রূপান্তর প্রক্রিয়া অত্যন্ত কঠিন সংকটে পড়েছে। ইপি প্রতিনিধিরা মনে করেন, মিয়ানমারে সংস্কার নিশ্চিত করতে গণতান্ত্রিক রূপান্তর প্রক্রিয়া আবশ্যক; কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে মিয়ানমার তা পারবে এমন বিশ্বাস রাখতে পারছেন না ইপি প্রতিনিধিরা।

পানজেরি বলেন, ইপি প্রতিনিধিরা মিয়ানমারকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে তিনটি সুনির্দিষ্ট তাগিদ দিয়েছেন। এগুলো হলো জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) পূর্ণ সম্পৃক্ততা নিশ্চিত করে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে গত ২৩ নভেম্বর সই হওয়া প্রত্যাবাসন চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন, রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব সমস্যা দূর করতে ১৯৮২ সালের নাগরিক আইন সংশোধন এবং গত বছরের আগস্ট মাস থেকে রাখাইন রাজ্যে সংঘটিত নৃশংসতার স্বাধীন আন্তর্জাতিক তদন্ত, পূর্ণ মানবিক সহযোগিতার সুযোগ প্রদান এবং মানবিক পরিস্থিতি কার্যকরভাবে পর্যবেক্ষণ করা।

উল্লেখ্য, ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মানবাধিকারবিষয়ক উপকমিটির একটি প্রতিনিধিদল গত সপ্তাহে মিয়ানমার ও বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকা সফর করে। ওই প্রতিনিধিদলের সঙ্গে ইপির পররাষ্ট্র ও বাণিজ্যবিষয়ক কমিটি এবং আসিয়ানবিষয়ক কমিটির সদস্যরাও ছিলেন। জানা গেছে, ইপি প্রতিনিধিদলটি শিগগিরই ইউরোপীয় পার্লামেন্টে একটি প্রস্তাব আনবে। সেটি গৃহীত হলে তা ইইউর ২৮টি সদস্য রাষ্ট্রের জন্য নির্দেশনা হিসেবে গণ্য হবে।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT