চা শ্রমিকদের বাড়ি বানাতে ২ শতাংশ হারে ঋণের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর চা শ্রমিকদের বাড়ি বানাতে ২ শতাংশ হারে ঋণের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর – CTG Journal

মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
নতজানু পররাষ্ট্রনীতির কারণে সীমান্তে বার বার বাংলাদেশী হত্যার ঘটনা ঘটছে: মন্জু নাইক্ষ্যংছড়িতে স্থল মাইন ধ্বংস করেছে সেনাবাহিনীর বিস্ফোরক বিশেষজ্ঞ দল ফের বাড়লো স্মারক স্বর্ণমুদ্রার দাম ক্রোড়পত্র প্রকাশে নতুন নিয়ম নাইক্ষ্যংছড়িতে শিক্ষার্থীদের মাঝে ‘বীর বাহাদুর ফাউনন্ডেশনের’ বই ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ আসন্ন শায়দীয় দূর্গা পূজার প্রস্তুতিতে মানিকছড়িতে মতবিনিময় সভা আওয়ামী লীগ কখনও সুষ্ঠু নির্বাচনে বিশ্বাস করে না : ডা. শাহাদাত যমুনায় দ্বিতীয় রেল সেতুর কাজ শুরু নভেম্বরে, ব্যয় বাড়লো দ্বিগুণ মিলগেটে সরবরাহ সংকট, পাইকারীতে রেডি ও ডিও ভোগ্যপণ্যের দামের বড় ফারাক! সংসদীয় গণতন্ত্রের নামে দেশে প্রাতিষ্ঠানিক স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে: জিএম কাদের হাটহাজারীতে সরকারি শিশু পরিবারের ২৫’শ বর্গফুট জমি উদ্ধার বেগমগঞ্জের একলাশপুরে বিভিন্ন বাহিনীর ৭ সদস্য আটক
চা শ্রমিকদের বাড়ি বানাতে ২ শতাংশ হারে ঋণের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

চা শ্রমিকদের বাড়ি বানাতে ২ শতাংশ হারে ঋণের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ চা শ্রমিকদের ঘরবাড়ি নির্মাণে চা বাগান মালিকদের ২ শতাংশ হারে গৃহায়ণ ঋণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রবিবার রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত চা প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চাবাগান মালিকদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি এ ঘোষণা দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, চা একটি জনপ্রিয় পানীয়। দেশ বিভাগের আগে  সিলেটের মালনীছড়ায় চা বাগান ছিল। সেখানে উপমহাদেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে শ্রমিকদের এনে চায়ের চাষ করানো হতো। ১৯৫৬ সালে যুক্তফ্রন্ট সরকার গঠন করে। শাসনতন্ত্র রচনা করে। কিন্তু, বঙ্গবন্ধু সে সরকার থেকে এক বছর পর দল গোছানোর জন্য বেরিয়ে যান। এরপর তাকে চা বোর্ডের চেয়ারম্যান করা হয়। তিনিই শ্রীমঙ্গলে চা বোর্ডের অফিস প্রতিষ্ঠাসহ মতিঝিলে এর একটি অফিস করেন। সেই জায়গায় আজ বহুতল ভবন করার জন্য আমি ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে এসেছি। চা বাগান মালিকদের ১০০ বিঘা পর্যন্ত জমির মালিকানা সংরক্ষণে বিশেষ ভূমিকা রেখেছিলেন বঙ্গবন্ধু।

তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে  চা উৎপাদনেও আমরা যথেষ্ট উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। চা মালিকদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষেতে জেনারেটরের ওপর থেকে ট্যাক্স তুলে নেই। চা শ্রমিক ও তাদের পরিবারের স্বাস্থ্য, শিক্ষা , গর্ভবর্তী মায়েদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করি।

এসময় চাবাগান মালিকদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে চা শ্রমিকদের ঘরবাড়ি নির্মাণের ওপরে গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, আমরা আশ্রয়ণ প্রকল্প করেছি। কেউ কুঁড়েঘরে থাকবে না।  চা শ্রমিকরাও যাতে ঘরবাড়ি পায় সেজন্য গৃহায়ণ তহবিল থেকে  ২% সার্ভিস চার্জের মাধ্যমে চা বাগানের মালিকদের ঋণ দেওয়া হবে। এই ঋণ ৫% এর ওপর আদায় করা যাবে না। আর গৃহায়ণ তহবিলের শর্ত অনুসারে, প্রতিটি বাড়িতে বিনা খরচে একটি করে স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা নির্মাণ করে দিতে হবে।

এসময় তিনি চা শ্রমিকদের মঙ্গলের প্রতি দৃষ্টি দিতে চা বাগানের মালিকদের প্রতি আহ্বান  জানান। পাশাপাশি চা শ্রমিকদের প্রতি অনুরোধ করেন, যেখান থেকে জীবিকা হচ্ছে সেই বাগানের প্রতি তারা যেন যথেষ্ট যত্নবান হন।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT