সমঝোতার সব পথ বন্ধ করেছে সরকার: মওদুদ সমঝোতার সব পথ বন্ধ করেছে সরকার: মওদুদ – CTG Journal

বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০১:৩৮ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
৩৮তম বিসিএস হতে নন-ক্যাডারে ৫৪১ জনকে নিয়োগের সুপারিশ ‘কাশ্মির টাইমস’ কার্যালয় বন্ধ করে দিলো প্রশাসন ফের আলুর দাম নির্ধারণ করলো সরকার মানিকছড়িতে অবৈধ বালু উত্তোলনের দায়ে অর্ধলক্ষ টাকা জরিমানা ভূরাজনীতিক কারণে মিয়ানমারকে তোয়াজ করা হচ্ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী কাপ্তাইয়ের মৎস্যজীবীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত রায়হান হত্যার সুষ্ঠু বিচার হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী লামায় তামাকের বিকল্প হিসেবে বিনামূল্যের সবজি বীজ পেল ১৫০ কৃষক বাইশারীতে জরাজীর্ণ কালভার্টটি অভিভাবকহীন, দেখার কেউ নেই ব্যানকোভিডেই ভরসা গ্লোব বায়োটেকের দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা তালিকায় বাংলাদেশ কলেজ ছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
সমঝোতার সব পথ বন্ধ করেছে সরকার: মওদুদ

সমঝোতার সব পথ বন্ধ করেছে সরকার: মওদুদ

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠিয়ে সরকার সমঝোতার সব পথ বন্ধ করে দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি বলেন, ‘মিথ্যা, সাজানো, ভুয়া মামলায় কারাগারে পাঠিয়ে খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। আর বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রীর জনপ্রিয়তা কমেছে। বিএনপি চেয়ারপারানের জনপ্রিতায় ভীত হয়ে সরকার তাকে কারাগারে পাঠিয়েছে। সরকারের উদ্দেশ্য জিয়া পরিবারকে হেয় করা।’

শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক দল আয়োজিত এক নাগরিক সভায় তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলাটি জাল জালিয়াতির একটা মামলা। এ মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসনকে অন্যায়ভাবে সাজা দেওয়া হয়েছে। এটি কোনও ফৌজদারি নয়, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যমূলক মামলা। খালেদা জিয়াকে মানসিকভাবে দুর্বল করতেই রাজনৈতিক উদ্দেশে সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে, অথচ মামলার কোনও ভিত্তি নেই। এমনকি যে সব ফাইল সরকার তৈরি করেছে, তার কোথাও খালেদা জিয়ার স্বাক্ষর নেই।’

মওদুদ আরও বলেন, ‘বিএনপির নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে ৭৫ হাজার মামলা করা হয়েছে। এসব মামলায় ১৮ লাখ নেতা-কর্মীকে আসামি করা হয়েছে। কোনও কোনও মামলায় চারশ’, পাঁচশ’ জনকে আসামি করা হয়েছে। এমনকি খালেদা জিয়াকেও কারাগারে রাখা হয়েছে। এসব মামলা করে সরকার যদি মনে করে জনগণ দুর্বল হয়ে পড়েছে, তবে তারা ভুল ভাবছে।’

বিএনপির এই নেতা দাবি করেন, খালেদা জিয়াকে যে কারাগারে রাখা হয়েছে, তা একটি পরিত্যক্ত নির্জন কারাগার। এখানে তাকে রাখার উদ্দেশ্য তার মনোবল ভেঙে দেওয়া। কিন্তু সরকারের এ প্রচেষ্টা সফল হবে না। তার সঙ্গে যে আচরণ করা হচ্ছে, তা কোনও আইন বা জেলকোডেও নেই।

বর্তমানে বিএনপির সামনে দুইটি চ্যালেঞ্জ রয়েছে উল্লেখ করে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আমাদের প্রথম চ্যালেঞ্জ হচ্ছে— খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করে আনা। আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে—  আন্দোলনের মাধ্যমে বর্তমান ভোটারবিহীন সরকারকে অপসারণ ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে বাধ্য করা।’

তিনি বলেন, ‘আমরা এবার দৃষ্টান্ত স্থাপন করবো— কিভাবে শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে একটি সরকারকে অপসারণ করা যায়। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে বাধ্য করা যায়। আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে সরকারকে বাধ্য করবো। কিন্তু সরকার চায় খালেদা জিয়াকে ছাড়া ভোট করতে। আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, বিএনপি চেয়ারপারসনকে ছাড়া দেশে কোনও নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না।’

নাগরিক সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক দলের সভাপতি হুমায়ুন কবির বেপারী।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT