ব্রিজ ভাঙা, কাজে আসছে না ৬৫ লাখ টাকার রাস্তা ব্রিজ ভাঙা, কাজে আসছে না ৬৫ লাখ টাকার রাস্তা – CTG Journal

মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নামে ভুয়া ওয়েবসাইট খুলে পণ্য খালাসের চেষ্টা! হাজী সেলিমের ছেলে ও দেহরক্ষীর বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টা মামলা হাজী সেলিমের ছেলের বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ, অপরাধীকে আইনের আওতায় আনার আশ্বাস স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নৌবাহিনী কর্মকর্তাকে মারধর: হাজী সেলিমের ছেলে গ্রেপ্তার ১৯৩৮ সালেই বিচার বিভাগ আলাদা করার দাবি করেছিলেন শেরে বাংলা দেশে করোনার সংক্রমণ ৪ লাখ ছাড়াল খাগড়াছড়িতে এক হাতে গাছের চারা, অন্য হাতে লাল কার্ড নিয়ে ধর্ষণ বিরোধী শপথ চবিতে আগের নিয়মেই ভর্তি পরীক্ষা ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশের এএসআই আটক রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে জাপানের সহায়তা চেয়েছে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষকদের সব ধরনের বদলি বন্ধ নাইক্ষ্যংছড়িতে করোনায় ক্ষতি গ্রস্তকৃষকদের প্রণোদনার চেক বিতরণ
ব্রিজ ভাঙা, কাজে আসছে না ৬৫ লাখ টাকার রাস্তা

ব্রিজ ভাঙা, কাজে আসছে না ৬৫ লাখ টাকার রাস্তা

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ একটি কালভার্টের অভাবে পটিয়া উপজেলার হাইদগাঁও ইউনিয়নের দুই কিলোমিটার গ্রামীণ সড়কটি এখনো অচল পড়ে আছে! ২০১৬–২০১৭ অর্থ বছরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) থেকে প্রায় ৬৫ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলার হাইদগাঁও–কেলিশহর সংযোগ সড়কটিকে ডাবল ‘ব্রিক সলিংয়ে উন্নীত করা হয়। উত্তর হাইদগাঁও শালিকপাড়া ও পার্শ্ববর্তী কেলিশহর এলাকায় রয়েছে হিন্দু সম্প্রদায়ের দুই শতাধিক পরিবার।

তাদের যাওয়া–আসার একমাত্র পথ এটি। গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কের মাঝখানের একটি কালভার্ট দীর্ঘদিন ধরে ভেঙে পড়ে থাকায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে এখানকার মানুষের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। ভাঙা কালভার্টের কারণে গাড়ি চলাচল দূরের কথা পায়ে হেঁটে যাওয়া পর্যন্ত দূরূহ হয়ে উঠেছে। গ্রামবাসী ইতোমধ্যে স্থানীয় সাংসদ সামশুল হক চৌধুরী, হাইদগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ইউনুচ মিয়াসহ সংশ্লিষ্টদের জানালেও তার কোনো সুরাহা হয়নি। ফলে এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬–২০১৭ অর্থবছরে উপজেলার হাইদগাঁও–কেলিশহর সংযোগ সড়কটি ব্রিক সলিংয়ে উন্নীত করা হলেও মাঝখানে একটি ভাঙা কালভার্টের কারণে গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে। গ্রামীণ এই রাস্তা দিয়ে হাইদগাঁও ইউনিয়নের লোকজন ছাড়াও এখানকার গুচ্ছগ্রামের লোকজন যাতায়াত করে। তাছাড়া রাস্তার শেষ সীমানায় রয়েছে কেলিশহর ও হাইদগাঁও গ্রামের পাহাড়ি অঞ্চল। এলাকার শিক্ষার্থী ছাড়াও শত শত কৃষক প্রতিদিন ক্ষেত খামারে যাতায়াত করেন।

একটি কালভার্টের অভাবে ওই রাস্তার দুই কিলোমিটার এখন অকেজো পড়ে আছে। উত্তর হাইদগাঁও গ্রামের বাসিন্দা সন্তোষ চৌধুরী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এলজিইডির অর্থায়নে তাদের এলাকার সড়কটি ডাবল ব্রিক সলিংয়ে উন্নীত হলেও কালভার্টের অভাবে বর্তমানে গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে। বিষয়টি গ্রামবাসী স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে জানিয়েছেন। কালভার্ট না থাকায় উত্তর হাইদগাঁও শালিকপাড়াসহ পার্শ্ববর্তী কেলিশহর ইউনিয়নের সঙ্গে এই গ্রামের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। জনস্বার্থে কালভার্টটি দ্রুত নির্মাণ করে রাস্তাটি সচল করার দাবি জানান তিনি।

এ ব্যাপারে হাইদগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইউনুচ মিয়া বলেন, ইতঃপূর্বে এলজিইডির অর্থায়নে ২টি কালভার্টসহ দুই কিলোমিটার রাস্তা প্রায় ৬৫ লাখ টাকা ব্যয়ে সংস্কার করা হয়েছে। তবে একটি কালভার্টের অভাবে বর্তমানে ওই সড়কের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। জনস্বার্থে একটি কালভার্ট নির্মাণ অত্যন্ত জরুরি। তিনি জানান, স্থানীয় এমপি সামশুল হক চৌধুরীর সহযোগিতার জন্য ইতোমধ্যে উনাকে জানানো হয়েছে। তিনি এখানে একটি কালভার্ট নির্মাণে বরাদ্দ দেয়ার প্রতিশ্রুতিও প্রদান করেন।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT