সংকটের মুখে মালদ্বীপ, প্রেসিডেন্টকে অভিশংসনের প্রচেষ্টা সংকটের মুখে মালদ্বীপ, প্রেসিডেন্টকে অভিশংসনের প্রচেষ্টা – CTG Journal

বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৩:৩৬ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বাড়ি নির্মাণের অভিজ্ঞতা নিতে ১৬ কর্মকর্তার বিদেশ সফরের প্রস্তাব করোনাকালে চলছে কোচিং সেন্টার, বন্ধ করল প্রশাসন করোনার পরও লটারিতে ভর্তি চলবে: শিক্ষামন্ত্রী ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিঃ এর উদ্যোগে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় সি.আর.এম উদ্বোধন সাংবাদিক কনক সারওয়ার ও ইলিয়াসসহ ৩৫ জনের ব্যাংক হিসাব তলব প্রায় ৭ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন পাচ্ছে বাংলাদেশ লামা সদর ইউনিয়ন আ.লীগের নতুন সভাপতি জহির, সম্পাদক ক্যাম্রাচিং ও সাংগঠনিক মানিক বড়ুয়া করোনায় একদিনে আরও ৩৯ জনের মৃত্যু পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র সচিব করোনায় আক্রান্ত কেডিএস আক্রোশ থেকে এক অসহায় পরিবারের বাঁচার আকুতি সিঙ্গাপুরে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে বাংলাদেশি গ্রেফতার পিছিয়ে যাচ্ছে ২০২১ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা
সংকটের মুখে মালদ্বীপ, প্রেসিডেন্টকে অভিশংসনের প্রচেষ্টা

সংকটের মুখে মালদ্বীপ, প্রেসিডেন্টকে অভিশংসনের প্রচেষ্টা

মালদ্বীপের সর্বোচ্চ আদালতের আদেশ অমান্য করে অভিশংসনের শঙ্কায় পড়েছেন সে দেশের প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন। বিরোধী দলীয় ৯ নেতার বিরুদ্ধে সরকারের আনা সন্ত্রাসের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে সুপ্রিম কোর্ট ওই নেতাদের মুক্তির নির্দেশ দিয়েছে। তবে প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনের সরকার সুপ্রিম কোর্টের এ আদেশকে অগ্রাহ্য করছে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে উদ্ধৃত করে আল জাজিরা জানিয়েছে, সর্বোচ্চ আদালত এজন্য প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের অভিশংসনে প্রচেষ্টা নিয়েছে। রাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল এমন পরিস্থিতিতে সংকটের আশঙ্কা করছেন।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, তিন দিন আগে সুপ্রিম কোর্ট বিরোধী ওই ৯ নেতার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে তাদেরকে মুক্তির নির্দেশ দেয়। কিন্তু সরকার তাতে মোটেও কর্ণপাত করছে না। বিরোধী দলীয় ওই নেতাদের মধ্যে রয়েছেন মালদ্বীপে প্রথম গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহামেদ নাশিদ। তিনি বর্তমানে নির্বাসনে বসবাস করছেন বৃটেনে। মুক্তির নির্দেশ দেয়া আরো একজন বিরোধী নেতা এখন নির্বাসনে রয়েছেন। বাকি সাতজনকে রাখা হয়েছে মালদ্বীপের সবচেয়ে বড় জেলখানায়। এটি মাফুশি দ্বীপে অবস্থিত।

এরইমধ্যে বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট ওই রায় দেয়ার অল্প পরেই প্রেসিডেন্ট মোহামেদ ইয়ামিন তার পুলিশ প্রধানকে বরখাস্ত করেন। এরপর যে ব্যক্তিকে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ প্রধান হিসেবে তিনি বেছে নিয়েছিলেন, তাকে বরখাস্ত করেন শনিবার। একই সঙ্গে মাফুশি জেলখানার পরিচালকও শনিবার পদত্যাগ করেছেন। বিরোধীরা মনে করছে এর মাধ্যমে সরকার সহিংসতা ছড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে।

মালদ্বীপের মুখ্য আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তা কয়েকজন বিরোধী দলীয় নেতার মুক্তির আদেশ দেওয়ার কয়েকদিন পর এবার প্রেসিডেন্টকে অভিশংসিত করার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে সুপ্রিম কোর্ট। দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল মোহামেদ অনিল রবিবার জাতীয় সব প্রতিষ্ঠান ও প্রতিরক্ষা বিষয়ক ইউনিটগুলোকে সুপ্রিম কোর্টের উদ্যোগে সামিল না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি রাজধানী মালে’তে সাংবাদিকদের বলেন, আমরা এমন সব তথ্য পাচ্ছি যাতে জাতীয় নিরাপত্তা সঙ্কটে পড়বে।

অ্যাটর্নি জেনারেল মোহামেদ অনিল বলেন, ‘জানা যাচ্ছে, প্রেসিডেন্টকে অভিশংসিত অথবা তাকে ক্ষমতা থেকে উৎখাতে রুল ইস্যু করতে পারে সুপ্রিম কোর্ট। রাষ্ট্রীয় সব প্রতিষ্ঠান এরই মধ্য এই বার্তা পেয়েছে। যদি পরিস্থিতি তা-ই হয় তাহলে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে আমরা অনুরোধ করবো সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক রুল যেন তারা মেনে না নেয়।’

আদালতের নির্দেশ মেনে বিরোধী নেতাদের মুক্তি দাবি করে রাজধানীতে র‌্যালি করেছে কয়েক শত মানুষ। আন্তর্জাতিক সংগঠন ও পশ্চিমা দেশগুলোও ইয়ামিনকে চাপ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আদেশ মেনে নিতে। ওদিকে দেশটির পার্লামেন্টের ১২ জন সদস্যের সদস্যপদ কেড়ে নেয়া হয়েছিল। কিন্তু আদালত তাদেরকে সেই পদে পুনর্বহালের নির্দেশ দিয়েছে। ওই ১২ জন এমপি গত বছর ইয়ামিনের ক্ষমতাসীন দল থেকে পদত্যাগ করেন। সব কিছু মিলে মালদ্বীপের নিয়ন্ত্রণ এখন আবদুল্লাহ ইয়ামিনের জন্য বড় ধরনের একটি হুমকি হয়ে উঠেছে।

২০১৩ সালের নির্বাচনে সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহামেদ নাশিদকে পরাজিত করে ইয়ামিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তবে নাশিদের সমর্থকরা বলেন, ওই নির্বাচন ছিল জালিয়াতির। ওদিকে বিরোধী নেতাদের মুক্তির নির্দেশের বিষয়ে ইয়ামিন শনিবার দলীয় এক সভায় বলেছে, সুপ্রিম কোর্ট এমন রায় দেবে তা তিনি প্রত্যাশাও করেন নি। তিনি বলেছেন, এ নিয়ে আমরা সুপ্রিম কোর্টের সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছি। রাষ্ট্রের জটিলতা ও উদ্বেগের বিষয়ে আলোচনা করতে বসেছি আমরা। আমরা আদালতের রায়ের প্রতি এমন ভাবে সম্মান দেখাতে চাই যে, তাতে জনগণের যেন কোনো ভোগান্তি না হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT