আসামি ছিনতাইয়ের ‘অনবদ্য সেলফি’ আসামি ছিনতাইয়ের ‘অনবদ্য সেলফি’ – CTG Journal

মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০১:০৯ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ ৪৪ হাজার মিলিয়ন ডলার চন্দ্রপাহাড়ে পর্যটন কেন্দ্র নিয়ে তৃতীয় পক্ষ যাতে সুযোগ নিতে না পারে সেজন্য সর্তক থাকার আহ্বান মাস্ক না পরলে আরও কঠোর হবে সরকার ক্যাম্পাস ছাড়াও বিভাগীয় শহরে হবে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা প্রজেক্ট বিল্ডার্স লিমিটেডের চেক প্রতারণা এমডি ও পরিচালকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা দুর্নীতির মামলা থেকে খালাস ইশরাক হোসেন নাইক্ষ্যংছড়ি থানার আলমগীর হোসেন আবারও জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি মনোনীত কোভিড-১৯: একদিনে ২৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২,৪১৯ কারা ভ্যাকসিন পাবেন, তালিকা করছে সরকার একদিনের ব্যবধানে বেড়েছে করোনা আক্রান্ত, শনাক্ত ২৪২ বিদেশে অর্থ পাচারকারীদের যাবতীয় তথ্য চেয়েছেন হাইকোর্ট ফাইজারের ভ্যাকসিনকে এ সপ্তাহেই ছাড়পত্র দিতে পারে যুক্তরাজ্য
আসামি ছিনতাইয়ের ‘অনবদ্য সেলফি’

আসামি ছিনতাইয়ের ‘অনবদ্য সেলফি’

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ গতকাল মঙ্গলবার বিশেষ আদালতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার হাজিরা দেওয়া শেষে তাঁর গাড়িবহর হাইকোর্ট এলাকা পার হওয়ার সময় ব্যাপক সংঘর্ষ ও ভাঙচুর হয়েছে। বিকেলের দিকের এই সংঘর্ষে পুলিশের কয়েক সদস্য এবং বিএনপির অন্তত ৩০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। বিএনপির কর্মীরা ঈদগাহ ময়দানের সামনে থাকা একটি পুলিশ প্রিজন ভ্যানের তালা ভেঙে দুই কর্মীকে ছিনিয়ে নেয়।

সেখানেই দেখা গেল মজার দৃশ্য, আসামি ছিনতাই দৃশ্যটি যেন এক কর্মী নিজের ফ্রেমবন্দী করে রাখতে চলেছেন। এমনই লক্ষ্যে ওই কর্মী সংঘর্ষের মধ্যেও মোবাইল বের করে ছিনতাইয়ের দৃশ্যটি সেলফিবন্দী করার চেষ্টা করেন। আর ছবিটিও সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ আলোচিত হয়।

সেখানে এক পুলিশ সদস্যকে মারধরও করা হয় এবং পুলিশের একটি রাইফেল কেড়ে তা ভেঙে ফেলা হয়। এ ঘটনায় হাইকোর্ট এলাকায় ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। এসব ঘটনায় ৬৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার শুনানি শেষে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে আদালত থেকে ফিরছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। হাইকোর্ট এলাকায় ওই সময় রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করছিল বিএনপি নেতাকর্মীরা। বিএনপি নেত্রীর গাড়িবহর এলাকাটি অতিক্রম করতে থাকলে পরিস্থিতি আরো উত্তপ্ত হয়। এ সময় পুলিশ রাস্তা থেকে বিএনপি নেতাকর্মীদের সরিয়ে দিতে লাঠিপেটা করে। তখন আড়ালে থাকা বিএনপি নেতাকর্মীরা চারপাশ থেকে ইট-পাথর ছুড়তে ছুড়তে রাস্তায় চলে এসে পুলিশের ওপর চড়াও হয়। ঈদগাহ ময়দান গেটের সামনে পুলিশের একটি প্রিজন ভ্যান রাখা ছিল। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের মধ্যে থেকে দুজনকে আটক করে প্রিজন ভ্যানে তোলে। বিএনপি নেতাকর্মীরা ছুটে গিয়ে প্রিজন ভ্যানে হামলা চালিয়ে তালা ভেঙে দুই কর্মীকে ছিনিয়ে নেয়। এ সময় পুলিশের রাইফেলও ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চলে।

ঘটনাস্থলে থাকা বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, ওবায়দুল হক মিলন ও সোহাগ মজুমদার নামের দুই কর্মীকে আটক করে প্রিজন ভ্যানে তুলেছিল। তারা প্রিজন ভ্যান থেকে ডাকাডাকি করলে অন্যরা গিয়ে সেখানে জড়ো হতে হতে থাকে। একপর্যায়ে প্রিজন ভ্যানে হামলা চালায়। প্রিজন ভ্যানের দায়িত্বে থাকা এক পুলিশ সদস্য বাধা দিতে গেলে তাঁকে মারধর করে। ওই পুলিশকে রক্ষা করতে এগিয়ে যান অন্য পুলিশ সদস্যরা। তখন তাঁদের ওপরও হামলা চালানো হয়। পুলিশের একটি রাইফেল কেড়ে নিয়ে তার বাঁট ভেঙে ফেলে বিএনপির কর্মীরা। এ সময় বিএনপির সিনিয়র নেতারা এগিয়ে গিয়ে কর্মীদের সরিয়ে নেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আহত পুলিশ সদস্য বলেন, ‘আমি পুলিশে চাকরি করি, তাই প্রিজন ভ্যান ছেড়ে পালিয়ে যেতে পারিনি। ওরা আমাকে মেরছে, তবুও কিছু বলিনি।’ পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদার বলেন, পুলিশের ওপর হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় ৬৯ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন। শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান জানান, প্রিজন ভ্যানে কোনো আসামি ছিল না।

তবে এসব ছাপিয়ে ওইসময় সেলফিবাজ তরুণের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ আলোচিত হচ্ছে।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT