রাঙ্গুনিয়ায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দোকান কর্মচারী দগ্ধ, গ্যাস সিলিন্ডারের বিপজ্জনক মজুত রাঙ্গুনিয়ায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দোকান কর্মচারী দগ্ধ, গ্যাস সিলিন্ডারের বিপজ্জনক মজুত – CTG Journal

শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১১:৪৫ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
রাঙামাটিতে ইউপি চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ২ নারী নির্যাতন, কোভিড-১৯ ও মানবাধিকার চট্টগ্রামে ২৪ ঘণ্টায় কমেছে পরীক্ষা ও শনাক্ত সন্দ্বীপ চ্যানেলে সমুদ্রবন্দর স্থাপনের প্রস্তাব সেতুমন্ত্রীর রোগীর কিডনি গায়েব: চার চিকিৎসকের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠক, আলোচনা হবে রোহিঙ্গা ইস্যুতেও আরও ২০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২২৭৩ করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৪ লাখ ৩৭ হাজার ছাড়িয়েছে দ্রুত সময়ে ভ্যাকসিন পেতে সরকার সমন্বিত উদ্যোগ নিয়েছে: কাদের নাইক্ষ্যংছড়িতে ৪২ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলা অনুষ্ঠিত লক্ষ্য থাকলে এগিয়ে যাওয়া সহজ হয়: প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বাড়ি নির্মাণের অভিজ্ঞতা নিতে ১৬ কর্মকর্তার বিদেশ সফরের প্রস্তাব
রাঙ্গুনিয়ায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দোকান কর্মচারী দগ্ধ, গ্যাস সিলিন্ডারের বিপজ্জনক মজুত

রাঙ্গুনিয়ায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দোকান কর্মচারী দগ্ধ, গ্যাস সিলিন্ডারের বিপজ্জনক মজুত

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মো. জাহাঙ্গীর আলম (৩০) নামের এক ব্যক্তি দগ্ধ হয়েছেন। গত শুক্রবার রাত ১২টার দিকে উপজেলার মরিয়ম নগর চৌমুহনী বাজার এক দোকানে এ ঘটনা ঘটে। জাহাঙ্গীর গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রির ওই দোকানের কর্মচারী। ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা বলছেন, দোকানটিতে মজুত করা গ্যাস সিলিন্ডার বিপজ্জনকভাবে রাখা ছিল। এ কারণে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

কেন গ্যাস সিলিন্ডারের বিস্ফোরণ ঘটছে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের যন্ত্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক বদিউস সালাম বলেন, দুটি কারণে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হতে পারে—পরীক্ষা ছাড়া সিলিন্ডারে গ্যাস ভরা ও গাদাগাদি করে গরম স্থানে রাখা। তিনি দোকানিদের সিলিন্ডার নিয়মিত পরীক্ষা ও ঠান্ডা স্থানে রাখার পরামর্শ দেন।

দগ্ধ জাহাঙ্গীরের বাড়ি খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালা উপজেলার মেরুন গ্রামে। তিনি গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রির একটি দোকানের কর্মচারী। তাঁকে রাতেই চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।

হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির নায়েক আমির হোসাইন  বলেন, জাহাঙ্গীরের অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। তাঁর শরীরের প্রায় ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, পাকা দোকানের মেঝেতে তখনো বিপজ্জনকভাবে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে বেশ কিছু গ্যাস সিলিন্ডার। ধসে গেছে দোকানের ভেতরের দুটি দেয়াল। তখনো গ্যাসের গন্ধ চারপাশে।

আশপাশের ব্যবসায়ীরা বলেন, নাদিম শাহ নামের এক ব্যক্তি চট্টগ্রাম শহর থেকে বাসাবাড়ির চুলায় ব্যবহৃত গ্যাস সিলিন্ডার মজুত রেখে পাইকারিতে বিক্রি করে আসছিলেন।

মরিয়ম নগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) মো. সেলিম বলেন, শুক্রবার রাত ১২টার দিকে বোমা বিস্ফোরণের মতো বিকট শব্দ হয়। তখন আশপাশের এলাকা কেঁপে ওঠে। তিনি থানা-পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের খবর দিলে তাঁরা ঘটনাস্থলে আসেন।

ফায়ার সার্ভিসের রাঙ্গুনিয়া স্টেশনের কর্মকর্তা আবু বক্কর বলেন, সিলিন্ডার বিস্ফোরণের খবর পেয়ে তাঁরা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা যাওয়ার আগে আহত ব্যক্তিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আবু বকর আরও বলেন, দোকানটিতে গাদাগাদি করে বিপজ্জনকভাবে শতাধিক গ্যাস সিলিন্ডার রাখা ছিল।

রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমতিয়াজ মো. আহসানুল কাদের ভূঞা বলেন, বিস্ফোরণের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। তবে বিস্ফোরণের কারণ জানা যায়নি। বিষয়টি তদন্ত চলছে।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT