১৬ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম হয়েছি : প্রধানমন্ত্রী ১৬ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম হয়েছি : প্রধানমন্ত্রী – CTG Journal

মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০১:৪১ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ ৪৪ হাজার মিলিয়ন ডলার চন্দ্রপাহাড়ে পর্যটন কেন্দ্র নিয়ে তৃতীয় পক্ষ যাতে সুযোগ নিতে না পারে সেজন্য সর্তক থাকার আহ্বান মাস্ক না পরলে আরও কঠোর হবে সরকার ক্যাম্পাস ছাড়াও বিভাগীয় শহরে হবে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা প্রজেক্ট বিল্ডার্স লিমিটেডের চেক প্রতারণা এমডি ও পরিচালকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা দুর্নীতির মামলা থেকে খালাস ইশরাক হোসেন নাইক্ষ্যংছড়ি থানার আলমগীর হোসেন আবারও জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি মনোনীত কোভিড-১৯: একদিনে ২৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২,৪১৯ কারা ভ্যাকসিন পাবেন, তালিকা করছে সরকার একদিনের ব্যবধানে বেড়েছে করোনা আক্রান্ত, শনাক্ত ২৪২ বিদেশে অর্থ পাচারকারীদের যাবতীয় তথ্য চেয়েছেন হাইকোর্ট ফাইজারের ভ্যাকসিনকে এ সপ্তাহেই ছাড়পত্র দিতে পারে যুক্তরাজ্য
১৬ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম হয়েছি : প্রধানমন্ত্রী

১৬ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম হয়েছি : প্রধানমন্ত্রী

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যে কোনো উন্নয়নের ক্ষেত্রে আমি মনে করি বিদ্যুৎ অপরিহার্য। দেশে এখন মানুষের অর্থনৈতিক সক্ষমতা যত বাড়ছে, তত বিদ্যুৎতের চাহিদা বাড়ছে। কাজেই চাহিদার সঙ্গে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়াতে হবে। চাহিদা মেটানোর জন্য যা যা করণীয় আমরা তাই করছি। বিদ্যুৎ দিলেই মানুষের জীবন-জীবিকার পথ খুলে যায়। আজকে ১৬ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম হয়েছি।

আজ রবিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মাতারবাড়িতে ১২০০ মেগাওয়াট আল্ট্রা সুপার ক্রিটিক্যাল কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে এসব কথা বলেন। এ উপলক্ষে প্রকল্প বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান কোল পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি বাংলাদেশ লিমিটেড প্রকল্প এলাকায় এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বেসরকারি খাতে বিদ্যুৎ উৎপাদন আমরা করে দিয়েছি। ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে দেখলাম, এ কাজ সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। বাংলাদেশে নতুন কিছু করতে গেলে নানা রকম বাধা আসে। নতুন নতুন তাত্ত্বিক আসে। কেউ কেউ হতাশায় ভোগে। কেউ কেউ বলে, গেল গেল সব গেল, সব গেল।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, তাপবিদ্যুৎ প্রকল্পে ৫০০ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রস্তুতিমূলক কাজ শেষ হয়েছে ৯ মাস আগে। এখন প্রকল্পের মূল কাজ শুরু হয়েছে। এতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা।

ভূমি উন্নয়ন, অবকাঠামো ও মাটি ভরাটের কাজ শেষ হলে ২০২১ সালে বসানো হবে বিদ্যুৎ উৎপাদনের যন্ত্রপাতি। এতে প্রথমে ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে। এরপর ছয় মাসের ব্যবধানে আরও ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব নজীবুর রহমান। অনুষ্ঠানে জাপানী উন্নয়ন সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT