চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লা মোড়ে কর্মীদের বাঁচাতে গিয়ে পুড়ে মারা গেলেন মালিক চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লা মোড়ে কর্মীদের বাঁচাতে গিয়ে পুড়ে মারা গেলেন মালিক – CTG Journal

বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ০৬:৩৮ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
কাপ্তাইয়ে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উদযাপন কাজের জন্য সৌদি আরবে যেতে চাইলে চাকরিদাতার ছাড়পত্র লাগবে করোনাভাইরাস: দেশে ৩২ জন মৃত্যুর দিনে শনাক্ত ১,৪৩৬ বান্দরবান সাংবাদিক ইউনিয়নের আত্মপ্রকাশ রায় শুনে কেঁদেছেন রিফাতের বাবা: জানালেন সন্তুষ্টি কথা চট্টগ্রামে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাবে সাড়ে ৫ লাখ শিশু খাগড়াছড়িতে ধর্ষণ রোধে পদক্ষেপ জানতে চেয়ে ডিসিকে আইনি নোটিশ বান্দরবানে এ” প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষ্যে সাংবাদিকদের কর্মশালা বন্যা: কুড়িগ্রামে কর্মহীনতা ও খাদ্য সংকট প্রকট রিফাত হত্যা: মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসির রায় ইকামার মেয়াদ বাড়ানোর কোনও ঘোষণা সৌদি সরকার দেয়নি! করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা তিন কোটি ৩৮ লাখ ছাড়িয়েছে
চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লা মোড়ে কর্মীদের বাঁচাতে গিয়ে পুড়ে মারা গেলেন মালিক

চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লা মোড়ে কর্মীদের বাঁচাতে গিয়ে পুড়ে মারা গেলেন মালিক

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লা মোড়ে এইচকে ম্যানশন ভবনের চতুর্থ ও পঞ্চম তলাজুড়ে আইপিএস কারখানাটি। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় কারখানার মালিক শুভ্র দাশ (৫০) ছিলেন চতুর্থ তলায়। হঠাৎ শুনতে পান পঞ্চম তলায় আগুন লেগেছে। শ্রমিকদের বাঁচাতে ওপরের তলায় ছুটে যান তিনি। অন্যদের সঙ্গে আগুন নেভানোর কাজে হাত লাগান। আগুন চারপাশে ছড়িয়ে পড়লেও ঝুঁকি নিয়ে উদ্ধার অভিযান চালান তাঁরা।

অগ্নিনির্বাপক সরঞ্জাম হাতে নিয়ে পুড়তে থাকা একটি কক্ষে ঢুকে পড়েন শুভ্র দাশ। এরপর তাঁকে আর খুঁজে পাচ্ছিলেন না শ্রমিকেরা। ঘণ্টাখানেক পর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা গুরুতর দগ্ধ অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করেন। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে নেওয়ার পর চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। তাঁর কারখানার নাম গার্ডিয়ান আইপিএস। (আইপিএস—তাৎক্ষণিকভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা থাকে এমন যন্ত্র)।

আগুন লাগার ঘটনায় দগ্ধ হয়েছেন কারখানার কর্মী মো. ইকবাল (৪০), জুয়েল দে (৩৫), অঞ্জন দাশ (৩০), মিঠুন গুহ (৩০), বিজয় চৌধুরী (৩৮), রহিম বাদশা (২০) ও মিন্টু হোসেন। তাঁদের কারও হাত, কারও পা, বুক, মুখসহ শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে গেছে।

বার্ন ইউনিটের চিকিৎসক নারায়ণ চৌধুরী জানান, আহত লোকজনের মধ্যে ইকবালের ৫৫, জুয়েলের ৩০, মিঠুনের ৩০ ও বিজয়ের ১০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

হাসপাতালে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে কারখানাটির ব্যবস্থাপক বিজয় চৌধুরী জানান, সন্ধ্যা সোয়া সাতটার দিকে পঞ্চম তলায় হঠাৎ আগুন লাগে। তখন তিনি মালিকের সঙ্গে চতুর্থ তলায় ছিলেন। উদ্ধারকাজে অংশ নিতে গিয়ে তাঁরা দগ্ধ হন।

ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক পূর্ণচন্দ্র মুৎসুদ্দি বলেন, প্রাথমিকভাবে বৈদ্যুতিক গোলযোগ থেকে আগুন লেগেছে বলে তাঁরা ধারণা করছেন। পঞ্চম তলায় যেখানে আগুন লেগেছে, সেখানে অনেক বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ছিল।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT