সরকার সংসদ নির্বাচন না করার পাঁয়তারা করছে: মির্জা ফখরুল সরকার সংসদ নির্বাচন না করার পাঁয়তারা করছে: মির্জা ফখরুল – CTG Journal

বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ০৬:৪৩ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
কাপ্তাইয়ে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উদযাপন কাজের জন্য সৌদি আরবে যেতে চাইলে চাকরিদাতার ছাড়পত্র লাগবে করোনাভাইরাস: দেশে ৩২ জন মৃত্যুর দিনে শনাক্ত ১,৪৩৬ বান্দরবান সাংবাদিক ইউনিয়নের আত্মপ্রকাশ রায় শুনে কেঁদেছেন রিফাতের বাবা: জানালেন সন্তুষ্টি কথা চট্টগ্রামে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাবে সাড়ে ৫ লাখ শিশু খাগড়াছড়িতে ধর্ষণ রোধে পদক্ষেপ জানতে চেয়ে ডিসিকে আইনি নোটিশ বান্দরবানে এ” প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষ্যে সাংবাদিকদের কর্মশালা বন্যা: কুড়িগ্রামে কর্মহীনতা ও খাদ্য সংকট প্রকট রিফাত হত্যা: মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসির রায় ইকামার মেয়াদ বাড়ানোর কোনও ঘোষণা সৌদি সরকার দেয়নি! করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা তিন কোটি ৩৮ লাখ ছাড়িয়েছে
সরকার সংসদ নির্বাচন না করার পাঁয়তারা করছে: মির্জা ফখরুল

সরকার সংসদ নির্বাচন না করার পাঁয়তারা করছে: মির্জা ফখরুল

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ সরকার আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন না করার পাঁয়তারা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘দেশে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে সরকার কখনই নির্বাচিত হতে পারবে না।’

বুধবার দুপুরে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর কবরে শ্রদ্ধা জানানোর পর সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘সরকার সব গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো ধ্বংস করেছে। জনগণের ভোট দেওয়ার ন্যূনতম অধিকার, কথা বলা ও লেখার, সংগঠন করার, রাস্তায় বের হওয়ার অধিকার কেড়ে নিয়েছে। এমনকি খালেদা জিয়ার আদালতে হাজিরার দিন ৫০-৬০ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের উদ্দেশ্য একটাই, বিএনপিকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখা। আমরা আবারও বলছি, এই অবস্থা চলবে না, চলতে দেওয়া হবে না।’

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ আর ক্ষমতায় আসতে পারবে না জেনে তারা তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা বাতিল করেছে। আজ তারা দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন করতে চায়। এ জন্য তারা বিভিন্ন অজুহাতও সৃষ্টি করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন চাই। তত্ত্বাবধায়ক সরকার মানুষ গ্রহণ করেছিল। যে ব্যবস্থায় তিনটি নির্বাচন হয়েছে সেটা কেন বাতিল করা হলো? আপনারা (সরকার) নিরপেক্ষ সরকার না দিয়ে, দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন করতে চান কেন?’

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘এই সরকারের অধীনে  যে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না তা ইতোমধ্যে প্রমাণিত হয়েছে। আমরা  নির্বাচনকালীন সময়ে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড ও সমান সুযোগ দেখতে চাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘নির্বাচনকালীন সময়ে নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া এ দেশের জনগণ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে না। যতই নির্যাতন করুন, গ্রেফতার করুন, হত্যা-গুম করুন না কেন নিরপেক্ষ সরকারের দাবি থেকে জনগণকে সরাতে পারবেন না।’

ঢাবিতে সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার বিষয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যা ঘটেছে তা আওয়ামী লীগের চরিত্র, এটা ছাত্রলীগের জন্য নতুন কিছু নয়। তারা বহুবার শিক্ষক ও ছাত্রদের মেরেছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যখনই বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে, তখনই ছাত্রলীগ হাতিয়ার নিয়ে গণতন্ত্রকামী মানুষের ওপর আক্রমণ করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেশ-সমাজ-রাষ্ট্র ছাত্রলীগ জোর করে ক্ষমতা দখলে রাখতে চায়। কিন্তু তারা তা পারবে না। এর অবসান হবেই। এ দেশের মানুষ নিঃসন্দেহে তাদের পরাজিত করবে।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আব্দুল মঈন খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালি, আবদুস সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি মালয়েশিয়ায় মারা যান জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকো।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT