বরিশালে তীব্র শীতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পান চাষিরা বরিশালে তীব্র শীতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পান চাষিরা – CTG Journal

মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ ৪৪ হাজার মিলিয়ন ডলার চন্দ্রপাহাড়ে পর্যটন কেন্দ্র নিয়ে তৃতীয় পক্ষ যাতে সুযোগ নিতে না পারে সেজন্য সর্তক থাকার আহ্বান মাস্ক না পরলে আরও কঠোর হবে সরকার ক্যাম্পাস ছাড়াও বিভাগীয় শহরে হবে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা প্রজেক্ট বিল্ডার্স লিমিটেডের চেক প্রতারণা এমডি ও পরিচালকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা দুর্নীতির মামলা থেকে খালাস ইশরাক হোসেন নাইক্ষ্যংছড়ি থানার আলমগীর হোসেন আবারও জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি মনোনীত কোভিড-১৯: একদিনে ২৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২,৪১৯ কারা ভ্যাকসিন পাবেন, তালিকা করছে সরকার একদিনের ব্যবধানে বেড়েছে করোনা আক্রান্ত, শনাক্ত ২৪২ বিদেশে অর্থ পাচারকারীদের যাবতীয় তথ্য চেয়েছেন হাইকোর্ট ফাইজারের ভ্যাকসিনকে এ সপ্তাহেই ছাড়পত্র দিতে পারে যুক্তরাজ্য
বরিশালে তীব্র শীতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পান চাষিরা

বরিশালে তীব্র শীতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পান চাষিরা

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশায় পান পাতায় দাগ পড়া, শিকড় পচে যাওয়া ও পাতা ঝরাসহ পান বরজে বিভিন্ন ধরনের রোগ দেখা দিয়েছে। এতে জেলার পানের বাজারে ধস নেমেছে। কমে গেছে পানের দাম। এতে গত এক সপ্তাহে কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করছেন পান চাষি ও পান ব্যবসায়ীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলার আগৈলঝাড়া, উজিরপুর, বাবুগঞ্জ, গৌরনদী, মুলাদী ও বানারীপাড়া উপজেলার অনেক পরিবার পান চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। এর মধ্যে কেবল গৌরনদী উপজেলাতেই এক হাজার ৫০ হেক্টরের বেশি জমিতে পান চাষ করা হয়।

পান চাষিরা বলছেন, গত এক সপ্তাহের তীব্র শীতে পানের পাতায় দাগ দেখা দিয়েছে। পচে যাচ্ছে পান পাতা। এক পোয়া (৬৪ পানে এক বিড়া, ৩২ বিড়ায় এক পোয়া) বড় পানের দাম তিন হাজার টাকা থেকে কমে আটশ টাকা, মাঝারি আকারের পান প্রতি পোয়া এক হাজার ছয়শ টাকা থেকে কমে পাঁচশ টাকা এবং ছোট পান প্রতি পোয়া পাঁচশ টাকা থেকে কমে তিনশ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এতে বিভিন্ন মোকাম থেকে কম দামে পান কিনেও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

নন্দনপট্টি গ্রামের পান চাষী আলমগীর কাজী, কটকস্থল গ্রামের আলাম মাঝি, স্বপন মাঝি ও আলম হাওলাদার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশার কারণে পানের পাতা লালচে হয়ে ঝরে পড়ছে। পান বরজ থেকে ঝরে পরা পান সংগ্রহ করতে গেলে অন্য পানও ঝরে যাচ্ছে। এসব পান বাজারজাত করার জন্য স্তূপ করে রাখার সময় পাতায় কালো দাগ দেখা দিচ্ছে। আবার পচা পাতাও পাওয়া যাচ্ছে। ফলে পানের বাজারে ধস নেমে তারা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, পানের পাতায় দাগ থাকায় এবং পাতা পচে যাওয়ার কারণে ব্যবসায়ীরা দেশের অন্যান্য জেলার মোকামে আরও কম দামে পান বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। ব্যবসায়ীরা আরও বলছেন, পান পরিবহন ও বিক্রিতে দুই দিন সময় লাগে। পান আগে থেকেই কিছুটা পচে যাওয়ায় এ সময়ের মধ্যে আরও পান পাতা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ফলে এ অঞ্চলের ব্যবসায়ীরা দেশের বিভিন্ন বাজারে কম দামে পান বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন।

বরিশাল উত্তর জনপদের সবচেয়ে বড় পানের মোকাম গৌরনদী উপজেলার নীলখোলা এলাহী পান ভাণ্ডারের মালিক নুরুজ্জামান ফরহাদ মুন্সী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘গত সোমবার (২২ জানুয়ারি) ২০ লাখ টাকার পান কিনে ঢাকা, ফেনীসহ বিভিন্ন মোকামে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশায় পানের পাতার ওপর কালো দাগ পড়ে পচে নষ্ট হয়ে যাওয়ায় ওই পান নামমাত্র টাকায় বিক্রি করতে হয়েছে।’
একই কথা জানিয়েছেন একই মোকামের পান ব্যবসায়ী আব্দুল হাকিম খান, রুবেল খান, আনিস তালুকদার ও স্বপন গাজী।

পান চাষি ও ব্যবসায়ীরা আরও বলেন, এক বিঘা পান বরজ করতে খরচ হয় ছয় লাখ টাকা। এবার লাভ তো দূরের কথা, উৎপাদনের খরচও উঠবে না।

বরিশাল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের পক্ষ থেকে চাষিদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হচ্ছে। তাদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। পান বরজে বর্তমানে যেসব রোগ-বালাইয় সংক্রমিত হয়েছে, সে বিষয়ে আমাদের মাঠকর্মীরা প্রতিনিয়ত চাষিদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। অতিরিক্ত শীতের কারণে এ ধরনের রোগবালাই হচ্ছে।’ পান বরজের পরিচর্যা করলে এবং শীত কমে গেলে এক সপ্তাহের মধ্যে এ পরিস্থিতির উন্নতি ঘটবে বলে আশা করছেন তিনি।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT