১৮ বছরের নিচে কোনো টিকা নয়: স্বাস্থ্যমন্ত্রী - CTG Journal ১৮ বছরের নিচে কোনো টিকা নয়: স্বাস্থ্যমন্ত্রী - CTG Journal

বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৬:২১ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
কারাগারে কয়েদিকে নির্যাতনের অভিযোগে মামলা, পিবিআই’কে তদন্তের নির্দেশ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মিললো তিন কোটি টাকার ‘আইস’ বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানালেন জাতিসংঘ মহাসচিব কোভিড-১৯: আরও ৭ মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৯ ১০ মাস পর কার্টুনিস্ট কিশোরের কারামুক্তি গোপালগঞ্জ ও বরিশাল সফর করতে পারেন নরেন্দ্র মোদি কাপ্তাই হ্রদে অজ্ঞাত যুবকের লাশ, পকেটে মিলল টাকা ও মোবাইল আসামির নাম জামাল, গ্রেফতার হলেন কামাল! করোনা পারে নাই, আর কেউ অগ্রযাত্রা থামাতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী প্রেসক্লাবের সামনে যুবদলের প্রতিবাদ সমাবেশ নতুন করে শনাক্ত বাড়ছে কেন? ফেল করানোর ভয় দেখিয়ে যৌন হয়রানি: খাগড়াছড়ির শিক্ষককে ঢাকায় গ্রেফতার
১৮ বছরের নিচে কোনো টিকা নয়: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

১৮ বছরের নিচে কোনো টিকা নয়: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মোট জনসংখ্যার ৪০ শতাংশের বয়স ১৮ বছরের কম। এসব শিশু-কিশোরেরা কোভিড-১৯ টিকা পাবে না বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। ভ্যাকসিন পরীক্ষাগার পরিদর্শনের সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী। ছবি সৌজন্যে প্রাপ্ত

দেশের মোট জনসংখ্যার ৪০ শতাংশের বয়স ১৮ বছরের কম। এসব শিশু-কিশোরেরা কোভিড-১৯ টিকা পাবে না বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। 

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের আওতাধীন জাতীয় ওষুধমান নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রের ভ্যাকসিন ল্যাব পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মন্ত্রী জানান, ‘বিশ্বের কোথাও এই বয়সীদের টিকা দেওয়া হচ্ছে না। তাদের উপর কোনো ট্রায়ালও চালানো হয়নি।’ 

শেষোক্ত এই অংশ না নেওয়ার বিষয়টি তিনি কোন ট্রায়ালের সূত্রে পেলেন, তা অবশ্য উল্লেখ করেননি। জাহিদ মালেক বলেছেন, মোট জনসংখ্যার ২০ শতাংশ বা সাড়ে ৫ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হবে।  

এসময় তিনি আরও জানান, “দেশের বাইরে এক কোটি নাগরিক থাকেন। আর তাছাড়া, আমাদের হিসাবে এই মুহূর্তে সাড়ে পাঁচ কোটি মানুষের জন্য টিকার প্রয়োজন নেই। তাই যাদের দরকার এমন সাড়ে ৫ কোটি মানুষকে টিকার আওতায় আনা হবে। অর্থাৎ, মোট জনসংখ্যার মধ্যে বাদ পড়াদের সংখ্যা খুব বেশি হবে না, বাদ পড়াদেরও ধীরে ধীরে টিকাদান করা হবে।”

‘আপনারা দুটি পরীক্ষাগার দেখেছেন। একটি ওষুধ ও অন্যটি টিকার মান পরীক্ষার জন্য। আমাদের ওষুধ মান নিয়ন্ত্রণ পরীক্ষাগারটি জাতিসংঘের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) অনুমোদন প্রাপ্ত। এখানে নিয়মিত পরীক্ষার মাধ্যমে সার্বক্ষণিকভাবে ওষুধের উন্নত মান নিশ্চিত করা হয়। আগামীদিনে এখানে কোভিড-১৯ টিকার মানও পরীক্ষা করা হবে,” তিনি যোগ করেন। 

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT