সচেতনতা না বাড়ালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা - CTG Journal সচেতনতা না বাড়ালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা - CTG Journal

মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২৮ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
মহেশখালীতে কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকা পরিদর্শনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বান্দরবানের রোয়াংছড়ি খাল থেকে লাশ উদ্ধার রামগড়ে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন উদযাপন পানছড়িতে শেখ হাসিনার জন্মদিনে বৃক্ষরোপন, দোয়া ও আলোচনা সভা পানছড়িতে ষষ্ঠ জাতীয় বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত পানছড়িতে উপজেলা নির্বাহি অফিসারের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন ভাঙ্গনের মুখে পানছড়ির চেঙ্গী ইউনিয়ন পরিষদ পানছড়ির উল্টাছড়ি ইউপি-র বাৎসরিক পুষ্টি পরিকল্পনা প্রণয়ন কর্মশালা অনুষ্ঠিত দীঘিনালায় বিদ্যুৎ শর্ট সার্কিটের আগুনে বসত ঘর ভস্মীভূত নোয়াখালীতে আসামি বহনকারী গাড়িতে বিস্ফোরণ পানছড়িতে কৃষি সম্প্রসারণের কৃষক প্রশিক্ষন ও সার কীট নাশকের দোকান পরিদর্শন পানছড়িতে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ সম্পন্নকারী প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে সনদপত্র বিতরণ
সচেতনতা না বাড়ালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা

সচেতনতা না বাড়ালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা

ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের বিরুদ্ধে এখনই সচেতনতা জোরদার না করা গেলে বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা রয়েছে বলে সতর্কবার্তা জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) বনলতা ও ইসলামবাগ কাঁচা বাজারের জন্য গঠিত টেকনিক্যাল ওয়ার্কিং গ্রুপ। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) দুপুরে নগর ভবনের শীতলক্ষ্যা হলে এক মতবিনিময় সভায় এমন আশঙ্কা করা হয়। বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় ‘কাঁচা বাজারে পুষ্টিকর ও নিরাপদ খাদ্য সরবরাহ এবং বাজারে কোভিড-১৯ এবং ব্ল্যাক ফাঙ্গাস মোকাবেলায় করণীয়’ শীর্ষক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ইম্প্রুভড নিউট্রিশন (গেইন) বাংলাদেশ।

মতবিনিময় সভায় বক্তারা বলেন, ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কোনও সংক্রামক ব্যাধি নয়। কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়েছেন, এই ছত্রাক তাদের জীবনকে অতিমাত্রায় ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলতে পারে এবং অনেক সময় জীবনহানিরও কারণ হতে পারে। কিন্তু কোভিড-১৯ প্রতিরোধে প্রযোজ্য স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলার মাধ্যমে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বহুলাংশে এড়ানো যায়। তাই ব্ল্যাক ফাঙ্গাস নিয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করা খুবই জরুরি। তা না হলে করোনা মহামারির সাথে সাথে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসও বড় বিপদ হয়ে দেখা দেওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

সম্প্রতি ভারতের মহারাষ্ট্রে প্রথম শনাক্ত হওয়া এই ছত্রাক পর্যায়ক্রমে গুজরাট, দিল্লি, পশ্চিমবঙ্গসহ পুরো ভারতে ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশেও এই ছত্রাক শনাক্ত করা হয়েছে। আমাদের দেশেও সর্বত্র এই ছত্রাকের ছড়িয়ে পড়া রোধ করতে আমাদের সবাইকে আরও বেশি সচেতন হতে হবে বলে মনে করেন বক্তারা। তারা বলেন, আমাদের অবহেলা মারাত্মক বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে। ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে আমাদের খাদ্য শৃংখলকে নিরাপদ ও পুষ্টিকর করতে হবে। সেজন্য কাঁচা বাজারগুলোকে যেমন স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে, তেমনি খাদ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়ায় ভেজাল দূরীকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করতে হবে।

মত বিনিময় সভার প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডিএসসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. শরীফ আহমেদ বলেন, দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের একটি অত্যাধুনিক ল্যাব আছে। আমাদের খাদ্য সংগ্রহকারীরা বাজার থেকে নমুনা সংগ্রহ করে। সেগুলো ল্যাব পরীক্ষায় ভেজাল হিসেবে চিহ্নিত হলে তা আমাদের নগর ভবনের বিশেষ খাদ্য আদালতে আমরা মামলা করছি এবং সেখান থেকে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষে সদস্য অধ্যাপক ড. মো. আব্দুল আলিমের সভাপতিত্বে এবং ইটসেইফ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. শাখাওয়াত হোসাইনের সঞ্চলনায় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন- ডিএসসিসি’র অঞ্চল-৩ এর আঞ্চলিক নির্বাহী পরিচালক মো. বাবর আলী মীর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফিশারিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রোকনুজ্জামান, ডিএসসিসি’র ১৮ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফেরদৌস আলম, বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির প্রতিনিধি এবং ভোক্তা প্রতিনিধিরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT