রিজার্ভ চুরি: ৬ দেশের ৪০ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করে চার্জশিটের প্রস্তুতি - CTG Journal রিজার্ভ চুরি: ৬ দেশের ৪০ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করে চার্জশিটের প্রস্তুতি - CTG Journal

বুধবার, ১২ মে ২০২১, ১১:১৭ অপরাহ্ন

        English
রিজার্ভ চুরি: ৬ দেশের ৪০ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করে চার্জশিটের প্রস্তুতি

রিজার্ভ চুরি: ৬ দেশের ৪০ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করে চার্জশিটের প্রস্তুতি

সাইবার জালিয়াতির মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির মামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রায় শেষ করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। এ মামলায় বাংলাদেশসহ ৬ দেশের ৪০ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করে চার্জশিটের প্রস্তুতি নিয়েছে তারা। সিআইডি বলছে, ৫৬১ কোটি টাকা উদ্ধারে নিউ ইয়র্কের সাউদার্ন ডিসট্রিক্টের আদালতে একটি মামলা নিষ্পত্তির জন্য অপেক্ষা করছেন তারা। এটি নিষ্পত্তি হলেই বাংলাদেশ ব্যাংকের দায়ের করা মতিঝিল থানায় সেই রিজার্ভ চুরি মামলার চার্জশিট দেওয়া হবে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সূত্র বলছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় বাংলাদেশসহ ৬ দেশের ৪০ নাগরিকের সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়া গেছে। বাকি দেশগুলো হলো, ফিলিপাইন, চীন, শ্রীলঙ্কা, জাপান ও ভারত। ভারতীয়দের নাম শুধু সুইপ্টার হিসেবে এসেছে। এদের মধ্যে চীন ছাড়া বাকি দেশগুলো তথ্য দিয়েছে। পুলিশের মাধ্যমে তথ্য দিয়েছে ফিলিপাইন। শ্রীলঙ্কা, জাপান দিয়েছে ইন্টারপোলের মাধ্যমে। তাছাড়া ভারতও নানাভাবে সহযোগিতা করেছে।

সিআইডির ফিন্যান্সিয়াল ক্রাইমের বিশেষ পুলিশ সুপার মোস্তফা কামাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, এখন পর্যন্ত ৬ দেশের ৪০ জন ব্যক্তিকে শনাক্ত করতে পেরেছি। তাদের বিরুদ্ধেই চার্জশিট গঠনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি। তার মধ্যে ২৫ জনই  ফিলিপাইনের। তাদের তথ্যগুলো যাচাই-বাছাই চলছে।

একই বিষয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি মামলার তদন্ত একদম শেষ পর্যায়ে। কিন্তু টাকা উদ্ধারের জন্য নিউ ইয়র্কের সাউদার্ন ডিসট্রিক্টের আদালতে একটি মামলা ঝুলে আছে। আমেরিকায় আমাদের ল’ ফার্ম হায়ার করা আছে। তাদের সঙ্গে আমরা কয়েক দিন আগেও পরামর্শ করেছিলাম। জুরি মিটিং করেছি, আলোচনা করেছি। আলোচনায় পরে সিদ্ধান্ত হয়েছে, আমেরিকায় আদালতে যে মামলাটা আছে, সেটা আগে নিষ্পত্তি হলে টাকা ফিরিয়ে আনতে সুবিধা হবে। আমরা তাদের সঙ্গে সম্মত হয়েছি। আমরা অপেক্ষা করছি। কেননা, আমরা দেখবো আমাদের পাবলিক ইন্টারেস্ট। কারণ, এটা আমাদের জনগণের টাকা।

সিআইডি প্রধান বলেন, এই মামলা দেখভাল করার জন্য আমাদের আমেরিকায় অ্যাটর্নি আছে। তার সঙ্গে কথা বলেছি। তারাও বলেছেন, মামলাটি নিষ্পত্তি হতে খুব বেশি সময় লাগবে না। তবু আমরা অনুরোধ করেছি। মামলাটি যেন দ্রুত শেষ করে ফেলা যায়। ওটা শেষ হলেই আমরা আমাদের চার্জশিট জমা দিয়ে দেবো। 

চার্জশিটে কী আছে জানতে চাইলে মাহবুবুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমরা চার্জশিটটা একদম ন্যারো করে রেখেছি। এখানে বেশ কয়েকটি দেশের নাম আছে। তবে কোনও দেশকে দায় দেওয়ার সুযোগ থাকবে না। কেননা, ব্যক্তির দায় রাষ্ট্র নেবে না। এই ব্যক্তিরা বিভিন্ন দেশে বসে কাজগুলো করেছিলেন। সেজন্য সেসব দেশের নাম এসেছে। তবে এটার সঙ্গে রাষ্ট্রের কোনও সম্পর্ক নেই।

নিউ ইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভ বা নিউ ইয়র্ক ফেডে রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে ৮ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার চুরি হয় ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি। সাইবার জালিয়াতির মাধ্যমে রিজার্ভের অর্থ চুরির এ ঘটনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টস অ্যান্ড বাজেটিং বিভাগের যুগ্ম পরিচালক জুবায়ের বিন হুদা বাদী হয়ে ২০১৬ সালের ১৫ মার্চ মতিঝিল থানায় মামলা দায়ের করেন। 

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT