রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:০৫ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ও আটকে পড়া পাকিস্তানিরা বাংলাদেশের বোঝা: প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনিসহ মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষার সূচি প্রকাশ দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন ১ কোটি ৮২ লাখ মানুষ পরমাণু শক্তি আমরা শান্তির জন্য ব্যবহার করবো: প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণ এশিয়ায় করোনার ধাক্কা সামলানোর শীর্ষে বাংলাদেশ স্কুল শিক্ষার্থীদের শিগগিরই টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী শারদীয়া দুর্গাপুজা উপলক্ষে কাপ্তাইয়ে মন্দিরে আর্থিক সহায়তা প্রদান করলেন সেনা জোন রামগড়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পথে কামাল ‘করোনা পরবর্তী পরিবেশ ও জলবায়ু সহনশীল পুনরুদ্ধার পরিকল্পনা জরুরি’ ৬ ছাত্রের চুল কেটে দেওয়া শিক্ষক কারাগারে জাতীয় পার্টির নতুন মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচন ১১ নভেম্বর
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিন দিনব্যাপী জেলা ইজতেমা শুরু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিন দিনব্যাপী জেলা ইজতেমা শুরু

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ বৃহস্পতিবার (৪ ডিসেম্বর) থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিন দিনব্যাপী বিশ্ব জেলা ই্জতেমা শুরু হচ্ছে। জেলার সদর উপজেলার নাটাই দক্ষিণ ইউনিয়নের কালিসীমা-শালগাঁও স্কুল ও ঈদগাহ মাঠ সংলগ্ন তিতাস নদীর তীরে এবারের ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এ আয়োজনকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যেই সব প্রস্ততি সম্পন্ন করা হয়েছে। ইজতেমা সফলভাবে পালনের জন্য জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

ইজতেমা এলাকা নাটাই দক্ষিণ ইউনয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নাজমুল হক বলেন, ‘ইজতেমায় দেশি-বিদেশি মেহমানদের থাকার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে প্রায় ২০ একর জায়গা জুড়ে নির্মাণ করা হয়েছে বিশাল আকারের  প্যান্ডেল। মুসল্লিদের অজু করার জন্য পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশপাশি প্রায় ৮শ’ শৌচাগার নির্মাণ করা হয়েছে।’ ইতোমধ্যেই ইজতেমা মাঠে বিভিন্ন এলাকা থেকে মুসল্লিরা আসতে শুরু করেছেন বলেও জানা যায়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান জানান, শান্তিপূর্ণভাবে ইজতেমা পালনের জন্য প্যান্ডেলের পাশে ২৫টি সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। এছাড়া ইজতেমার ময়দানকে পাঁচটি ভাগে ভাগ করে জল ও স্থল পথে নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ২৪ ঘণ্টা নিরাপত্তার জন্য ৫৮৫ জন পুলিশ সদস্য নিয়োজিত করা হয়েছে। এছাড়াও র‌্যাব, বিজিবি, আমর্ড পুলিশ, নৌ-পুলিশসহ ম্যাজিস্ট্রেটরা কাজ করছেন।

তিনি আরও জানান, ইজতেমা ময়দানের পাশে থাকবে অবজারভেশন পোস্ট। রাতে এ পোস্টগুলোতে নাইট ভিশন বাইনোকুলার ব্যবহার করা হচ্ছে। মুসল্লিদের জরুরি চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য একটি মেডিক্যাল ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে একটি অ্যাম্বুলেন্স। ইজতেমা মাঠের আশপাশে ছিনতাই, পকেটমার, মলমপার্টি এবং বিভিন্ন দুর্ঘটনা এড়াতে পোশাকের পাশাপাশি সাদা পোশাকে বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। ইজতেমায় কোন কিছু হারানো বা পাওয়া গেলে জেলা পুলিশের ‘হারানো-প্রাপ্তি সহায়তা সেল’ এর মাধ্যমে সেবা পাওয়া যাবে।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT