ব্যবসা হাতিয়ে নিতে বাবাকে পাগল সাজালো ছেলে! - CTG Journal ব্যবসা হাতিয়ে নিতে বাবাকে পাগল সাজালো ছেলে! - CTG Journal

মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০৮:৫৩ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
দিনে সাইকেল চুরি, রাতে ইয়াবা বিক্রি সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে তিন পরামর্শ ১৯ দিনে জামিনে মুক্ত ৩৩ হাজার কারাবন্দি ফেসবুক কি শুনতে পায়, কীভাবে নজরদারি করে? পানছড়িতে ভেস্তে যাচ্ছে এলজিইডি’র ১ কোটি ৬২ লাখ টাকার তীর রক্ষা প্রকল্প: মরে যাচ্ছে ঘাস, তীরে ধরেছে ফাটল খালেদা জিয়ার বিদেশযাত্রা নিয়ে নতুন হিসাব-নিকাশ চীনা রাষ্ট্রদূতের মন্তব্যে বিস্মিত কূটনীতিকরা বেগম খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি কামনায় কাপ্তাইয়ে বিএনপির দোয়া ও ইফতার মাহফিল চৈতন্য গলির জুয়ার আস্তানায় পুলিশের হানা, আটক ১৪ সীমান্ত এলাকায় ব্যাপকহারে করোনা টেস্টের নির্দেশ রাউজানে প্রতারণা ও চাঁদাবাজির অভিযোগে যুবলীগ নেতা গ্রেপ্তার বাংলাদেশ থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাত ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা
ব্যবসা হাতিয়ে নিতে বাবাকে পাগল সাজালো ছেলে!

ব্যবসা হাতিয়ে নিতে বাবাকে পাগল সাজালো ছেলে!

বাংলাদেশ পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইং পরিচালিত ‘বাংলাদেশ পুলিশ ফেসবুক পেজ’ এর ইনবক্সে বার্তা পেয়ে পাবনার এক ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযোগ ছিল ওই ব্যবসায়ীর প্রথমপক্ষের ছেলে তাকে অপহরণের পর রাজধানীর এক হাসপাতালে পাগল হিসেবে ভর্তি করে ব্যবসা হাতিয়ে নিয়েছিল।

শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় পুলিশ সদর দফতরের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের এআইজি সোহেল রানা স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে ওই ব্যবসায়ীকে উদ্ধারের তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‘বাংলাদেশ পুলিশ ফেসবুক পেজ’ এর ইনবক্সে পাবনা জেলার এক নারী জানান, তার বাবাকে আগের ঘরের ছেলে ও বড় সন্তান কিছু দুষ্কৃতিকারীর সহযোগিতায় ১৫ দিন আগে তুলে নিয়ে যায়। তার বাবা পাবনা জেলায় একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। তার প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে বহু বছর আগেই ডিভোর্স হয়েছে। প্রথম সন্তান‌কে তি‌নি শুরু থে‌কেই পর্যাপ্ত প‌রিমাণ আ‌র্থিক সা‌পোর্ট দি‌য়ে আস‌ছি‌লেন। কিন্তু, সেই ছেলে জোরপূর্বক বাবার ব্যবসা দখলের পায়তারা করে। কিছু দুষ্কৃতিকারীর সহযোগিতায় প্রথম ঘরের ছেলে তার বাবাকে পথ থেকে তুলে নিয়ে যায়। তারপর, তাকে ঢাকার কোনও একটি বেসরকারি হাসপাতালে মানসিক রোগী হিসেবে ভর্তি করিয়ে রাখে এবং এক প্রকার ফিল্মি স্টাইলে ভদ্রলোকের ব্যবসা দখল করে।

পরে পাবনা জেলা পুলিশের সার্বিক তৎপরতায় ভিকটিমের অবস্থান শনাক্ত করা সম্ভব হয়। শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মো. তরিকুল ইসলামের নেতৃত্বে পাবনা জেলা পুলিশের একটি টিম ঢাকার বসিলায় অবস্থিত একটি অখ্যাত মানসিক রোগ হাসপাতাল ও রিহ্যাব সেন্টার থেকে উক্ত ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে। উদ্ধারকালে তার স্ত্রী ও কন্যা সঙ্গে ছিলেন।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইং সার্বক্ষণিকভাবে ভিকটিমের পরিবার ও পাবনা জেলা পুলিশের সঙ্গে বিষয়টির সমন্বয় করে।

পাবনা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাসুদ আলমকে বিষয়টি নিবিড়ভাবে তদারকির পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। মাসুদ আলম জেলা পুলিশ সুপারের সঙ্গে পরামর্শ করে এ বিষয়ে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নেন বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT