রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:২৩ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ও আটকে পড়া পাকিস্তানিরা বাংলাদেশের বোঝা: প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনিসহ মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষার সূচি প্রকাশ দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন ১ কোটি ৮২ লাখ মানুষ পরমাণু শক্তি আমরা শান্তির জন্য ব্যবহার করবো: প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণ এশিয়ায় করোনার ধাক্কা সামলানোর শীর্ষে বাংলাদেশ স্কুল শিক্ষার্থীদের শিগগিরই টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী শারদীয়া দুর্গাপুজা উপলক্ষে কাপ্তাইয়ে মন্দিরে আর্থিক সহায়তা প্রদান করলেন সেনা জোন রামগড়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পথে কামাল ‘করোনা পরবর্তী পরিবেশ ও জলবায়ু সহনশীল পুনরুদ্ধার পরিকল্পনা জরুরি’ ৬ ছাত্রের চুল কেটে দেওয়া শিক্ষক কারাগারে জাতীয় পার্টির নতুন মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচন ১১ নভেম্বর
ফটিকছড়িতে আড়াই’শ গ্রাহকের টাকা হাতিয়ে লাপাত্তা এনডিএস

ফটিকছড়িতে আড়াই’শ গ্রাহকের টাকা হাতিয়ে লাপাত্তা এনডিএস

নিজস্ব প্রতিনিধি, ফটিকছড়িঃ ফটিকছড়ি উপজেলার প্রায় ২শ৫০ গ্রাহকের কোটি টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি (এনডিএস) নামে একটি সংস্থা। যদিও সংস্থাটি ঠিকানা ব্যবহার করে ঢাকা সাভারের বিরুলিয়া রোডের উত্তর রাজাসনের।

জানা যায়, সংস্থাটি উপজেলার চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কের পেলাগাজী দিঘি মোড়ে একটা ভাড়া বাড়িতে অফিস নিয়ে তাদের কার্যক্রম চালাতে থাকে। এতে উপজেলার পাইন্দং, ভুজপুর, সুন্দরপুর, লেলাং,কাঞ্চন নগর, সুন্দর পুর ইউনিয়ন ,ফটিকছড়ি পৌর এলাকা এবং পার্শ্ববর্তী মানিকছড়ি উপজেলারসহ বিভিন্ন এলাকার স্বল্পশিক্ষিত, গরিব, অসহায় পরিবারকে লোন দেওয়ার নামে জামানত বাবদ অগ্রিম ৫ হাজার হতে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করে নেন চক্রটি।

এক পর্যায়ে সংস্থাটি তাদের লক্ষ্য পূরণ করে সুযোগ বুঝে তাদের অফিস ফেলে চলে যায়। এদিকে গত ১০ ডিসেম্বর গ্রাহকদের লোন দেওয়ার কথা থাকলে গ্রাহকরা কর্মকর্তাদের মোবাইল ফোন বন্ধ পেয়ে বিকালে তাদের অস্থায়ী কার্যালয়ে ভিড় করতে থাকে। পরে জানতে পারে সংস্থাটির লোকজন রাতেই গ্রাহকের টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। পৌর এলাকার উত্তর রাঙামাটিয়া আদর্শ গ্রামের আনোয়রা ও মনোয়ারা বেগম বলেন, লোন দেয়ার কথা বলে ১০ হাজার টাকা করে জামানত জমা নিয়ে জমানতের বই প্রদান করে। গত রবিবার লোন দেওয়ার কথা ছিল। তাদের মোবাইল বন্ধ পেয়ে কার্যালয়ে গিয়ে তাদের কাউকেই পাওয়া যায়নি।

সংবাদ পেয়ে থানার এস আই আবদুর রাজ্জাক ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়। গত মঙ্গলবার এব্যাপারে এস আই আবদুর রাজ্জাকের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পেলা গাজী দিঘী নামক স্থানের মিজ্জির বাড়ির ছালে আহম্মদের ভাড়া ঘরে অবস্থান নিয়ে প্রতারক চক্রটি অসহায় মানুষকে ধোঁকা দিয়ে টাকা নিয়ে পালিয়েছে। চক্রের কাউকে এখনো গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।কোন মামলাও হয়নি। ঘরটি তালাবদ্ধ করে দেয়া হয়েছে।
এই ব্যাপারে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিপক কুমার রায় বলেন, প্রতারণার শিকার হওয়া লোকজন আমার কাছেএসেছিল। তাদেরকে মামলা করতে বলেছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT