নোয়াখালীতে হরতাল চলছে, র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন, পুলিশের লাঠি চার্জে আহত ১৫ - CTG Journal নোয়াখালীতে হরতাল চলছে, র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন, পুলিশের লাঠি চার্জে আহত ১৫ - CTG Journal

রবিবার, ০৭ মার্চ ২০২১, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
এক রাতে মিললো ১২ কোটি টাকার ইয়াবা ‘ওয়াজ-মাহফিলের নামে জাতিকে ঈমানহারা করছেন তাহেরী’ মানিকছড়িতে দুগ্ধগাভী পেলেন অভিভাবকহীন শিশু-কিশোর পরিবার নিবন্ধন ৪৯ লাখ, টিকা নিয়েছেন ৩৬ লাখের বেশি মানুষ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বাংলাদেশের উত্তরণে ভারত ‘খুশি’ এক বা দুই ডোজ যা-ই হোক, সহজলভ্য ভ্যাকসিন গ্রহণের পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের ফেনীতে একটি ভবনে বিস্ফোরণে মা ও দুই মেয়ে দগ্ধ বেরোবি’র বিশেষ উন্নয়ন প্রকল্পে প্রভাবমুক্ত ও নিরপেক্ষ তদন্ত হয়েছে: ইউজিসি রোজার আগেই ‘মাঠে নামবে’ গণফোরাম করোনাভাইরাস: দেশে আরও ১০ মৃত্যু, শনাক্ত ৫৪০ সংশোধন নয়, ২৬ মার্চের আগেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করুন: জাফরুল্লাহ চৌধুরী চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত আরও ৯২ জন
নোয়াখালীতে হরতাল চলছে, র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন, পুলিশের লাঠি চার্জে আহত ১৫

নোয়াখালীতে হরতাল চলছে, র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন, পুলিশের লাঠি চার্জে আহত ১৫

শনিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে হরতালের সমর্থনে মির্জা কাদেরের সমর্থকরা বসুরহাট বাজারের রুপালী চত্ত্বর থেকে একটি মিছিল নিয়ে থানার সামনে গেলে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ করে।

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার মেয়র ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জার ডাকা হরতাল বিছিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে চলছে। 

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী  সকাল সন্ধ্যা হরতাল থাকলেও শনিবার সকালে তা কমিয়ে অর্ধদিবসে আনেন মির্জা। জনগনের নিরাপত্তায় পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। মাঠে আছেন দুইজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। পুলিশের লাঠি চার্জে আহত হয়েছেন অন্তত ১৫জন পিকেটার।

জানা গেছে শনিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে হরতালের সমর্থনে মির্জা কাদেরের সমর্থকরা বসুরহাট বাজারের রুপালী চত্ত্বর থেকে একটি মিছিল নিয়ে থানার সামনে গেলে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ করে। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন সড়কে গাছের গুড়ি ফেলে অবরোধ করে মির্জার সমর্থকরা।

মির্জা কাদেরের সমর্থকদের দাবী, সকালের দিকে পুলিশ মারমুখী আচরণ করে। এসময় পুলিশের লাঠি চার্জে তাদের ১৫জন নেতা-কর্মী আহত হয়েছে। আহতরা হচ্ছেন, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক গোলাম ছারওয়ার, বসুরহাট পৌরসভা ৯নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি রাজীব, মাসুদ, পৌরসভা ৪নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, যুবলীগ নেতা আরজুসহ ১৫জন।

অন্যদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোম্পানীগঞ্জে দুইজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়াও উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ৪০ জন র‌্যাব ও ১১০ জন পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। 

কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহিদুল হক রনি জানান, সকালে কাদের মির্জা ওসি এবং পরিদর্শককে (তদন্ত) থানা থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দিয়ে থানায় এসে পুলিশের মুখের ওপর হাত নিয়ে অশ্লীল কথাবার্তা বলে। কাদের মির্জা পুলিশের সিনিয়র অফিসারদের সাথে মারমুখী আচরণ করে বিশৃঙ্খলা করার চেষ্টা করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে তাদের সরিয়ে দেয় পুলিশ। 

প্রসঙ্গত, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি ও পরিদর্শককে প্রত্যাহার এবং কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলসহ বেশ কিছু নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তারের দাবী এবং চাপরাশিরহাট পূর্ব বাজারে তার সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ শুক্রবার রাতে কোম্পানীগঞ্জে শনিবার হরতালের ডাক দেয় আবদুল কাদের মির্জা। নিজ দলের সমর্থকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে শনিবার বেলা ১১টায় বসুরহাট রূপালী চত্বরে সাংবাদ সম্মেলন করেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT