ট্যাক্স না দেওয়া ৫৭ হাজার ৫৩৫ কোম্পানি শনাক্ত করেছে এনবিআর - CTG Journal ট্যাক্স না দেওয়া ৫৭ হাজার ৫৩৫ কোম্পানি শনাক্ত করেছে এনবিআর - CTG Journal

বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৬:০০ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
কারাগারে কয়েদিকে নির্যাতনের অভিযোগে মামলা, পিবিআই’কে তদন্তের নির্দেশ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মিললো তিন কোটি টাকার ‘আইস’ বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানালেন জাতিসংঘ মহাসচিব কোভিড-১৯: আরও ৭ মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৯ ১০ মাস পর কার্টুনিস্ট কিশোরের কারামুক্তি গোপালগঞ্জ ও বরিশাল সফর করতে পারেন নরেন্দ্র মোদি কাপ্তাই হ্রদে অজ্ঞাত যুবকের লাশ, পকেটে মিলল টাকা ও মোবাইল আসামির নাম জামাল, গ্রেফতার হলেন কামাল! করোনা পারে নাই, আর কেউ অগ্রযাত্রা থামাতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী প্রেসক্লাবের সামনে যুবদলের প্রতিবাদ সমাবেশ নতুন করে শনাক্ত বাড়ছে কেন? ফেল করানোর ভয় দেখিয়ে যৌন হয়রানি: খাগড়াছড়ির শিক্ষককে ঢাকায় গ্রেফতার
ট্যাক্স না দেওয়া ৫৭ হাজার ৫৩৫ কোম্পানি শনাক্ত করেছে এনবিআর

ট্যাক্স না দেওয়া ৫৭ হাজার ৫৩৫ কোম্পানি শনাক্ত করেছে এনবিআর

কর না দেওয়া কোম্পানি খুঁজে বের করতে ২০২০ সালের আগস্টে একটি টাস্কফোর্স গঠন করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড।ছবি: সংগৃহীত

সরকারকে কোনো ট্যাক্স দেয় না- এমন ৫৭ হাজার ৫৩৫ কোম্পানিকে শনাক্ত করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনববিআর)। নিয়মিত ব্যবসা পরিচালনা করছে অথচ কর শনাক্তকারী নাম্বারও গ্রহণ করেনি এসব কোম্পানি।

২০২০ সালের আগস্ট থেকে চলতি বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মাঠ পর্যায়ে অভিযান চালিয়ে এসব প্রতিষ্ঠান খুঁজে পেয়েছে রাষ্ট্রীয় কর আহরণকারী সংস্থাটি। এসব প্রতিষ্ঠানকে এখন নতুন করে ইলেকট্রিক ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার (ই-টিএন) প্রদানসহ কর আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ নিয়েছে এনবিআর।

এনবিআরের করনীতির সদস্য আলমগীর হোসেন দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডকে বলেন, করের বাইরে থাকা এসব কোম্পানিকে নতুন টিআইএন সার্টিফিকেট দেওয়ার মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে কমপ্লায়েন্সের মধ্যে নিয়ে আসা হয়েছে। এনবিআর শাস্তির বিষয় না ভেবে নতুন করে কর আদায়কে প্রাধান্য দিচ্ছে।

‘দীর্ঘদিন কর না দেওয়া এসব কোম্পানির একেকটির একেক ধরনের সমস্যা। কোনো কোম্পানি হয়তো কার্যক্রম শুরুর পর আর সেভাবে ব্যবসা পরিচালনা করেনি। অনেকে হয়তো ব্যবসা করলেও কর দেওয়ার মতো আয় করতে পারেনি। তাই কোম্পানির অবস্থান বুঝে ব্যবস্থা নেবে এনবিআর,’ যোগ করেন আলমগীর হোসেন।

কর না দেওয়া কোম্পানি খুঁজে বের করতে ২০২০ সালের আগস্টে একটি টাস্কফোর্স গঠন করে এনবিআর। সংস্থাটির সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্সের জয়েন্ট ডিরেক্টর শাব্বির আহমদের নেতৃত্বে ৭ সদস্যকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। কমিটি মাঠ পর্যায়ের ৩০টি জোনের অধীনে ১৪৬টি কোম্পানি সার্কেলের মাধ্যমে ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এ কোম্পানিগুলোকে খুঁজে পায়।

এনবিআরের টাস্কফোর্স কমিটি জানিয়েছে, ২০২০ সালের আগস্ট পর্যন্ত টিআইএনধারী কোম্পানির সংখ্যা ছিল ৭৮ হাজার। এরমধ্যে মাত্র ২৮ হাজার ২০০ প্রতিষ্ঠান ২০১৯ সালে আয়কর রিটার্ন দিয়েছিল। মাঠ পর্যায়ে অভিযানের পর চলতি বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত টিআইএনধারী কোম্পানির সংখ্যা দাড়িয়েছে ১ লাখ ৩৫ হাজারের বেশি। অন্যদিকে আয়কর রিটার্ন বেড়েছে ৩৫ শতাংশ।

জানা গেছে, বর্তমানে যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মগুলোর পরিদপ্তরে (আরজেএসসি) নিবন্ধিত কোম্পানির সংখ্যা ১ লাখ ৭৬ হাজার। এরমধ্যে প্রতি বছর ৩৫-৩৬ হাজার প্রতিষ্ঠান আয়কর রিটার্ন দাখিল করছে। এসব প্রতিষ্ঠান থেকে বছরে ২০ হাজার কোটি টাকার বেশি ট্যাক্স পায় এনবিআর।

এনবিআর সূত্র জানিয়েছে, কর না দেওয়া কোম্পানি খুঁজে বের করার পাশাপাশি জাল অডিট রিপোর্ট খুজে বের করা, রিটার্ন দাখিল এবং অথেটিক অডিট রিপোর্ট দাখিল নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা থাকলে তা চিহ্নিত করেছে টাস্কফোর্স কমিটি।

এনবিআরের টাস্কফোর্স কমিটির একজন সদস্য বলেন, এখন পর্যন্ত দেশে নিবন্ধিত ৭০ শতাংশ প্রতিষ্ঠানকে নিবন্ধন দেওয়া হয়েছে। এপ্রিল মাসের মধ্যে এটি শতভাগে উন্নীত করা হবে। এ লক্ষ্যে মাঠ পর্যায়ে আরও বেশি অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

চলতি অর্থবছর আয়কর খাতে দেওয়া সরকারের রাজস্ব লক্ষ্য পূরণ করতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

চলতি অর্থবছর এনবিআরকে ৩.৩০ লাখ টাকার রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে এনবিআরের। এরমধ্যে আয়কর খাত থেকে আহরণ করতে হবে ১.০৫ লাখ কোটি টাকা। জুলাই-ডিসেম্বর পর্যন্ত অর্থবছরের প্রথমার্ধে এনবিআরের আহরণ ৪২.১০ কোটি টাকা। অর্থাৎ বাকি ছয় মাসে আহরণের লক্ষ্যমাত্রা প্রায় ৬০ হাজার কোটি টাকা।

অতিরিক্ত লক্ষ্যপূরণে এনবিআরের এ উদ্যোগ রাজস্ব ব্যবস্থার জন্য ভালো বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘একই করদাতার ওপর চাপ না দিয়ে রাজস্ব ফাঁকি বন্ধ ও নতুন করদাতা বৃদ্ধির কথা আমরা বারবারই বলে আসছি। সক্ষমতা ও উদ্যোগের অভাবে এনবিআর তা পেরে উঠছিল না।’

নতুন এ উদ্যোগের ফলে বিদ্যমান করদাতাদের ওপর চাপ কমাবে বলে মনে করছেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT