জামিন নিয়ে জালিয়াতি, বিপাকে উচ্চ আদালত - CTG Journal জামিন নিয়ে জালিয়াতি, বিপাকে উচ্চ আদালত - CTG Journal

বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৫:৫১ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
কারাগারে কয়েদিকে নির্যাতনের অভিযোগে মামলা, পিবিআই’কে তদন্তের নির্দেশ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মিললো তিন কোটি টাকার ‘আইস’ বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানালেন জাতিসংঘ মহাসচিব কোভিড-১৯: আরও ৭ মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৯ ১০ মাস পর কার্টুনিস্ট কিশোরের কারামুক্তি গোপালগঞ্জ ও বরিশাল সফর করতে পারেন নরেন্দ্র মোদি কাপ্তাই হ্রদে অজ্ঞাত যুবকের লাশ, পকেটে মিলল টাকা ও মোবাইল আসামির নাম জামাল, গ্রেফতার হলেন কামাল! করোনা পারে নাই, আর কেউ অগ্রযাত্রা থামাতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী প্রেসক্লাবের সামনে যুবদলের প্রতিবাদ সমাবেশ নতুন করে শনাক্ত বাড়ছে কেন? ফেল করানোর ভয় দেখিয়ে যৌন হয়রানি: খাগড়াছড়ির শিক্ষককে ঢাকায় গ্রেফতার
জামিন নিয়ে জালিয়াতি, বিপাকে উচ্চ আদালত

জামিন নিয়ে জালিয়াতি, বিপাকে উচ্চ আদালত

দেশের অন্যসব আদালতের মতো জালিয়াত চক্রের টার্গেটে আছে হাইকোর্টও। আসামিদের কাছ থেকে অবৈধ উপায়ে টাকা হাতাতে উচ্চ আদালতে তথ্য জালিয়াতি করছে তারা। সম্প্রতি এমন কিছু ঘটনা নজরে আসে হাইকোর্টের। এর মধ্যে শ্বাশুড়ি কর্তৃক মেয়ে ও মেয়ের জামাইয়ের অর্থ আত্মসাতের মামলাটি অন্যতম।

২০২০ সালের ৫ অক্টোবর মেয়ে আকিলা আঞ্জুয়ারা ও মেয়ের জামাই আনোয়ার হোসেন রানাসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানায় মামলা করেন দেলওয়ারা বেগম। ওই মামলায় একই বছরের ১১ অক্টোবর আনোয়ার ও আঞ্জুয়ারাকে আগাম জামিন না দিয়ে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দুই আসামি আত্মসমর্পণ করে জামিন চান। ২৫ অক্টোবর বগুড়ার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জামিন নামঞ্জুর করে স্বামী-স্ত্রীকে কারাগারে পাঠান। এরপর গত ৩ ডিসেম্বর জেলা ও দায়রা জজ আদালত আসামিদের জামিন আবেদন খারিজ করে দেন।

এদিকে নিম্ন আদালতে জামিন আবেদনের খারিজাদেশের বিরুদ্ধে প্রথমে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চে জামিন চেয়ে আবেদন জানান ওই দম্পতি। পরে হাইকোর্ট তাদের জামিন প্রশ্নে রুল জারি করেন। রুলের শুনানি শেষ না হতেই আগের আদালতকে না জানিয়ে আসামিরা হাইকোর্টে আরও দুটি পৃথক জামিনের আবেদন করেন। যা আদালতের সঙ্গে প্রতারণার শামিল।

একইসঙ্গে তিন আদালতে আবেদন করার বিষয়টি নজরে আসায় আসামিদের আবেদন সরাসরি খারিজ করেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে প্রতারণার আশ্রয় নেওয়ার শাস্তি হিসেবে পরের চার মাস দেশের কোনও আদালতে ওই দম্পতি জামিন চাইতে পারবে না বলেও আদেশ দেন বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন বাপ্পী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মামলায় জামিনের বিষয়ে রুল জারির পর তা শুনানির জন্য অপেক্ষমাণ ছিল। এরই মধ্যে আবারও আবেদন করা হয়েছিল। আদালতে তথ্য গোপন করে জালিয়াতির মাধ্যমে আসামিরা জামিন নেওয়ার চেষ্টা করেছিল। বিষয়টি আমার নজরে আসায় খোঁজ নিতে শুরু করি। পরে ঘটনার সত্যতা পেয়ে আদালতকে জানালে হাইকোর্ট ওই দম্পতির জামিন আবেদন করার সুযোগ চার মাসের জন্য আটকে দেন।’
ঠিক একই কারণে গত ২৯ জানুয়ারি ডাকঘরের অর্থ আত্মসাতের মামলায় চট্টগ্রাম ডাকবিভাগের কাউন্টার অপারেটর সারওয়ার আলম খানের জামিন আবেদন খারিজ করে দেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি ওই আসামির ক্ষেত্রেও চার মাস জামিন আবেদন না করতে পারার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

কয়েকটি মামলার নথি ও ঘটনা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, মূলত দ্রুত জামিনে বের হওয়ার আশায় আসামিরা জালিয়াত চক্রের প্ররোচনায় একেকবার একেক আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে আবেদন করে থাকেন।

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আদালত আসামিকে সরাসরি জামিন না দিয়ে অনেক সময় রুল জারি করেন। রুলের শুনানি পর্যন্ত আসামিকে কারাগারেই থাকতে হয় এবং অন্য কোনও আদালতে আবেদন করার জন্য তিনি বিবেচিত হন না। কারাবন্দি থাকার সময়ই জালিয়াত চক্রের প্রস্তাব পেলে নথি জালিয়াতির সুযোগ নেন আসামিরা। জামিন আবেদন হাইকোর্টের কোনও বেঞ্চ খারিজ করলে সে আদেশের বিরুদ্ধে আপিল না করে অনেক আসামি খারিজের তথ্য গোপন রেখে অন্য কোনও হাইকোর্ট বেঞ্চে জামিন চেয়ে আবেদন করেন। এ নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয় রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবীদের।

এ বিষয়ে কথা হয় রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিনের সঙ্গে। হাইকোর্টে তথ্য গোপন বন্ধের স্থায়ী কোনও সমাধান আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে জানান,‘আদালতের সার্বিক ব্যবস্থাপনা পুরোপুরি ডিজিটালাইজড করা সম্ভব না হলে এ অবস্থা থেকে মুক্তি মিলবে না। আমরা এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে আলোচনা করবো। মামলার এফিডেভিট পদ্ধতি বদলাতে হবে। আসামিদের নাম দিয়েই যেন মামলা এন্ট্রি করা হয়, সে বিষয়ে জোর দেবো।’

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT