ঘরে বসে হাজত বাস! - CTG Journal ঘরে বসে হাজত বাস! - CTG Journal

সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৫:১০ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর টার্গেটে আরও দুই ডজন হেফাজত নেতা আবারও চিকিৎসক দম্পতিকে জরিমানা ভার্চুয়াল কোর্টে জামিন পেয়ে কারামুক্ত ৯ হাজার আসামি লকডাউনের পঞ্চম দিনে ১০ ম্যাজিস্ট্রেটের ২৪ মামলা ওমানের সড়কে প্রাণ গেলো তিন প্রবাসীর, তারা রাঙ্গুনিয়ার বাসিন্দা একই কেন্দ্রে টিকা না নিলে সার্টিফিকেট মিলবে না মামুনুলের বিরুদ্ধে অর্ধশত মামলা, সহসাই মিলছে না মুক্তি ফিরতি ফ্লাইটের টিকিট পেতে সৌদি প্রবাসীদের বিশৃঙ্খলা সেরে ওঠা কোভিড রোগীদের জন্য কি ভ্যাকসিনের এক ডোজই যথেষ্ট? মানিকছড়িতে ভিজিডি’র চাল বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত রাখার নির্দেশ নিরাপদ কৌশল লকডাউন: স্বাস্থ্য অধিদফতর ৩৬ লাখ পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দেবেন প্রধানমন্ত্রী

ঘরে বসে হাজত বাস!

নিয়ম অনুযায়ী কারাদণ্ডপ্রাপ্ত একজন আসামিকে কারাগারে থাকার কথা। কিন্তু চট্টগ্রামে একটি ব্যতিক্রমী রায় দিয়েছেন আদালত। রায়ে আসামিকে কারাগারে নয়, নিজ বাড়িতে কারাভোগের আদেশ দেন বিচারক।

চট্টগ্রাম অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাসিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোছাম্মৎ ফরিদা ইয়াসমিন ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে দায়ের করা একটি মামলায় এ রায় দেন। ওই মামলায় তিনি কিছু শর্ত সাপেক্ষে আসামিকে নিজ বাড়িতে কারাভোগের সুযোগ দেন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আয়াত উল্লাহ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এটি কোনও ব্যতিক্রমী রায় না। প্রবেশন অব অফেন্ডার্স অ্যাক্ট নামে অনেক পুরোনো একটি আইন আছে। ওই আইনে একজন আসামির অতীত রেকর্ড ভালো হলে তাকে শুধরানোর সুযোগ দেওয়া হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই আইনটি বাংলাদেশে খুব বেশি কার্যকর নয়। চট্টগ্রাম জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক ওই আইনে এই আদেশ দিয়েছেন। জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ ধরনের রায় এটি প্রথম। এভাবে একজন আসামিকে শোধরানোর সুযোগ দিলে আসামি ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিকভাবে উপকৃত হবেন।’

পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের জেরে ২০১৯ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি মোহাম্মদ তৈয়্যব নামে এক ব্যক্তি মারধরের শিকার হন। ওই ঘটনায় ওই বছর ১৮ ফেব্রুয়ারি তৈয়্যব বাদী হয়ে মোহাম্মদ ইউনূস ও মোহাম্মদ বেলালসহ অজ্ঞাত আরও ২-৩ জনের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম চিফ জুডিয়াশিয়াল মেজিস্ট্রেটের আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মোহাম্মদ ইউনূস ও মোহাম্মদ বেলাল বাদীর ছোট ভাই। তারা হাটহাজারী থানাধীন ফতেহপুর এলাকার মৃত সোলাইমানের সন্তান।

আদালত সূত্র জানায়, এই মামলার স্বাক্ষ্যগ্রহণ, বাদী ও আসামি পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে গত ৪ মার্চ আসামি মোহাম্মদ ইউনূসকে তিন মাসের কারাদণ্ড ও এক হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দেন অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোছাম্মৎ ফরিদা ইয়াসমিন। আসামিপক্ষের আইনজীবী দ্যা প্রবেশন অব অফেন্ডার্স অর্ডিনেন্স ১৯৬০ এর ৪ ধারা এবং বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সার্কুলার জে-১/২০১৯, ১২-২-২০১৯ এর দ্বিতীয় শর্ত অনুযায়ী, শর্ত সাপেক্ষে আসামি বিমুক্ত করার আবেদন করলে আদালত সেটি মঞ্জুর করে হাটহাজারী উপজেলা প্রবেশন অফিসার (সমাজসেবা কর্মকর্তার অতিরিক্ত দায়িত্ব) ১৫ দিনের মধ্যে আসামির চরিত্র ও অন্যান্য অবস্থার বর্ণনা দিয়ে রিপোর্ট প্রদানের আদেশ দেন। প্রবেশন কর্মকর্তা রিপোর্ট প্রদান করলে গতকাল (৪ এপ্রিল) আদালতে পুনরায় শুনানি করা হয়। শুনানি শেষে আদালত আসামিকে প্রবেশনে থেকে শর্তসাপেক্ষে সাজাভোগের এই আদেশ দেন।

আসামিকে যেসব শর্ত পালন করতে হবে:

১. কোভিট-১৯ মোকাবিলায় মাস্ক পরিধান, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও হাত ধোয়ার গুরুত্ব সম্পর্কে পরবর্তী ৩ মাসের প্রত্যেক মাসে কমপক্ষে ১০ জনকে ফোনে বা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ব্যক্তিগতভাবে বোঝাবে। একইসঙ্গে নিজে এবং পরিবারে উক্ত বিষয়সমূহ প্রতিপালন করতে হবে।

২. আসামিকে তিন মাসের মধ্যে নিজের আত্মীয় স্বজন বা দূরবর্তী আত্মীয় স্বজন অথবা যেকোনও নিরক্ষর ব্যক্তিদের মধ্যে কমপক্ষে একজনকে স্বাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন করতে হবে।

৩. আসামিকে তিন মাসের প্রত্যেক দিন ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়তে হবে এবং ভাইয়ে ভাইয়ে মধ্যকার সম্পর্কবিষয়ক কমপক্ষে ৬টি হাদিস ইন্টারনেটে খুঁজে বের করতে হবে এবং তা প্রতিপালন করে প্রবেশন কর্মকর্তাকে রিপোর্ট করতে হবে।

৪. তিন মাসের মধ্যে কমপক্ষে ২০টি চারাগাছ নিজ বাড়ির আঙ্গিনাসহ রাস্তার পাশে অথবা যেকোনও খালি জায়গায় লাগাতে হবে এবং রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে।

৫. তিন মাসের মধ্যে কমপক্ষে একবার বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী পড়ে প্রবেশেন কর্মকর্তাকে রিপোর্ট করতে হবে।

৬. আসামিকে তিন মাসের মধ্যে কমপক্ষে ৬ বার বাদী মোহাম্মদ তৈয়্যব সঙ্গে সোহার্দ্যপূর্ণ ফোনালাপ করতে হবে এবং এর রেকর্ড রেখে প্রবেশন কর্মকর্তাকে শোনাতে হবে।

৭. আসামি বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ ও দেশপ্রেমের বিষয়ে মানুষকে অনুপ্রাণিত করবেন এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের ওপর দুটি সিনেমা দেখবেন।

৮. আসামি দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রবেশন কর্মকর্তার সঙ্গে মাসে ন্যূনতম একবার দেখা করবেন এবং তার অগ্রগতি জানাবেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT