কোম্পানীগঞ্জবাসী কাদের মির্জার অপরাজনীতি ও দুঃশাসন থেকে মুক্তি চায়’ - CTG Journal কোম্পানীগঞ্জবাসী কাদের মির্জার অপরাজনীতি ও দুঃশাসন থেকে মুক্তি চায়’ - CTG Journal

রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ১২:৩২ অপরাহ্ন

        English
কোম্পানীগঞ্জবাসী কাদের মির্জার অপরাজনীতি ও দুঃশাসন থেকে মুক্তি চায়’

কোম্পানীগঞ্জবাসী কাদের মির্জার অপরাজনীতি ও দুঃশাসন থেকে মুক্তি চায়’

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের মানুষ আবদুল কাদের মির্জার কাছে গত তিন মাস ধরে জিম্মি অবস্থায় আছে বলে অভিযোগ করেছেন সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল। শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) চাপরাশিরহাট বাজারে সংঘর্ষের ঘটনায় কাদের মির্জাকে অভিযুক্ত করেন তিনি। এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, কোম্পানীগঞ্জবাসী আবদুল কাদের মির্জার অপরাজনীতি ও দুঃশাসন থেকে মুক্তি চায়। তিনি প্রতিদিন একটা করে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কমিটি উপহার দিচ্ছেন। এই অবস্থার প্রতিবাদে আমরা সংবাদ সম্মেলনের ডাক দিয়েছিলাম। আমার বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করার প্রাক্কালে শুক্রবার বিকাল ৫টার পর ওনার সন্ত্রাসী বাহিনী সশস্ত্র অবস্থায় হামলা চালায়।

ভিডিও বার্তায় আওয়ামী লীগ নেতা মিজানুর রহমান আরও বলেন, পুরো কোম্পানীগঞ্জের মানুষ গত তিন মাস ধরে জিম্মি হয়ে আছে। কোনোদিন হরতাল, কোনোদিন অবস্থান ধর্মঘট, কোনোদিন থানা ঘেরাও, কোনোদিন অনশন কর্মসূচি পালন করছেন তিনি। আমরাও রাজনীতি করি, তৃণমূলের রাজনৈতিক কর্মী। উনি রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের নামে যখন প্রধানমন্ত্রী ও প্রিয় নেতা ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে কটাক্ষ করেন, তা মেনে নেওয়া যায় না। আমরা প্রতিনিয়ত এসব শুনছি, আপনারাও শুনছেন লাইভে। আমাদের নেতাদের নিয়ে বিশ্রীভাবে কটাক্ষ ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে চলছেন তিনি। এখনও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হয়নি। শেখ হাসিনাই নমিনেশন দেবেন, তবু উনি উনি নিজে উপজেলার সব ইউনিয়নে নমিনেশন ঘোষণা করেছেন।

বাদল আরও বলেন, ‘প্রিয় শেখ হাসিনা আপনি তৃণমূল নেতাকর্মীদের শেষ আশার স্থল। আপনার কাছে আমি আহ্বান জানাবো সত্যবচন নামধারী, কুখ্যাত ব্যক্তি কার এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্যে কথাগুলো বলছে তা অনুসন্ধান করে দেখুন। আপনি অনতিবিলম্বে েএই পাগলের চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। আমরা তার নির্যাতন থেকে, তার দুঃশাসন থেকে মুক্তি চাই।’

স্থানীয়রা জানান, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই কাদের মির্জা বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি ভেঙে দিলে সংগঠনটির দুই গ্রুপের মধ্যে বিরোধ স্পষ্ট হয়ে ওঠে। সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে চরফকিরা ইউনিয়নের চাপরাশিরহাট বাজারে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী বিকালে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দেন। পরে বাদলের অনুসারীরা চাপরাশির বাজারে মিছিল করতে গেলে কাদের মির্জার সমর্থকদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় গণমাধ্যম কর্মীসহ চার জন গুলিবিদ্ধ ও অন্তত ৩৫ জন আহত হন।

এদিকে শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সকালে বসুরহাট পৌর মেয়র আবদুল কাদের মির্জার ডাকা হরতাল সমর্থনে মিছিলে পুলিশ লাঠিচার্জ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন নেতাকর্মীরা। এতে অন্তত ১৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT