কাগজের নাম দিয়ে বিদেশি সিগারেট আমদানি - CTG Journal কাগজের নাম দিয়ে বিদেশি সিগারেট আমদানি - CTG Journal

রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ১১:২২ পূর্বাহ্ন

        English
কাগজের নাম দিয়ে বিদেশি সিগারেট আমদানি

কাগজের নাম দিয়ে বিদেশি সিগারেট আমদানি

পলিথিনে মোড়ানো কাগজের কার্টনে লুকিয়ে সিগারেট আমদানি করে রিয়াজুদ্দিন বাজারের আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান করিম ট্রেডিং। আর দুবাই থেকে চট্টগ্রাম বন্দরে আনা এসব সিগারেট ছাড়ানোর দায়িত্ব নেয় সুরমা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি সিএন্ডএফ প্রতিষ্ঠান। তবে এতে বাধ সাধে চট্টগ্রাম কাস্টমসের অডিট ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড রিসার্চ (এআইআর) শাখা।

কায়িক পরীক্ষার জন্য কনটেইনারের ভেতরের পণ্য বের করার জন্য সিঅ্যান্ডএফ প্রতিনিধিকে অনুরোধ করলে গড়িমসি শুরু করে সুরমা এন্টারপ্রাইজের এজেন্ট। একপর্যায়ে তারা কায়িক পরীক্ষা স্থগিত করার জন্য অনুরোধ করে। পরবর্তীতে কাস্টম কমিশনারের নির্দেশে রাত আনুমানিক ২টায় এ চালান পরীক্ষা করে ৪৬ লাখ শলাকার ২৩ হাজার কার্টন সিগারেট পাওয়া যায়।

সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে এ চালানে আমদানিকারকের চুরি ও সিএন্ডএফের চতুরতা ধরার কথা জানান এআইআর শাখার সহকারী কমিশনার রেজাউল করিম। 

তিনি বলেন, ‘রিয়াজুদ্দিন বাজারের আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান করিম ট্রেডিং সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে এফোর সাইজের কাগজ ঘোষণায় এক কনটেইনার পণ্য আমদানি করে। পণ্যচালানটি খালাসের লক্ষ্যে গত ৪ ফেব্রুয়ারি সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট সুরমা এন্টারপ্রাইজ কাস্টম হাউসে বিল অব এন্ট্রি (নম্বর সি-২২১১৮৬) দাখিল করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা কায়িক পরীক্ষার জন্য কনটেইনারের কাছে যাই। তখন সিএন্ডএফ এজেন্ট আমাদের কনটেইনারের পণ্য না খোলার জন্য অনুরোধ করে। পরবর্তীতে গতকাল রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) রাত পৌনে ২টায় কাস্টম কমিশনারের নির্দেশে আমরা এ চালানের কায়িক পরীক্ষা করি।’

তিনি আরো বলেন, ‘কনটেইনার থেকে সব পণ্য বের করে আনার পর দেখা যায়, ৪৮টি পলিথিনে মোড়ানো প্যালেটের প্রতিটিতে ৪৮টি কার্টন রয়েছে যার উপরের স্তরের ১২টি কার্টনে শুধুই কাগজ এবং পরবর্তী ৩৬ কার্টন খুলে উপরে এক রিম এফোর সাইজের কাগজ পাওয়া যায়। কাগজের নিচে আলাদা অন্য একটি কার্টনে পাওয়া যায় অভিনব কায়দায় লুকানো সিগারেট। এ চালানে ২৩ হাজার কার্টনে ৪৬ লাখ শলাকা ইজি এবং মন্ড ব্রান্ডের সিগারেট পাওয়া যায়। পণ্য চালানটিতে শর্ত সাপেক্ষে আমদানিযোগ্য পণ্য সিগারেট আমদানি করে প্রায় ১১ কোটি টাকা সরকারি রাজস্ব ফাঁকির অপচেষ্টা হয়েছে। এ ঘটনায় কাস্টমস আইনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।‘

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT